Agaminews
Bangla Noboborsho
Dr. Neem Hakim
১শ ট্রিলিয়ন ঘনফুট গ্যাসের সম্ভাব্য মজুদ

বঙ্গোপসাগরে খনিজের ভাণ্ডার


আগামী নিউজ | তথ্য ও প্রযুক্তি ডেস্ক প্রকাশিত: এপ্রিল ৮, ২০২১, ১১:১৯ এএম
বঙ্গোপসাগরে খনিজের ভাণ্ডার

ঢাকাঃ বঙ্গোপসাগরের তলদেশে ৩ হাজার ১০০ বর্গ কিলোমিটার এলাকাজুড়ে বিরল খনিজ পদার্থের ভাণ্ডার। এ ছাড়া সাগরের তলদেশে সম্ভাব্য ১০০ ট্রিলিয়ন ঘনফুট গ্যাসের মজুদ পাওয়া গেছে, যা দিয়ে মিটবে নিজেদের ১০০ বছরের চাহিদা।

সন্ধান মিলেছে মোনাজাইট, জিরকন, রুটাইল, ক্যালসিয়াম কার্বনেট, ফসফরাস, সালফেট ও রেয়ার আর্থ এলিমেন্টের মতো মূল্যবান সব খনিজ।

সম্প্রতি কক্সবাজারের পেঁচারদ্বীপস্থ বাংলাদেশ সমুদ্র গবেষণা ইনস্টিটিউট মিলনায়তনে আয়োজিত ‘সুনীল অর্থনীতির উন্নয়নে সমুদ্র সম্পদের সুষ্ঠু ব্যবহার ও চ্যালেঞ্জ’ শীর্ষক এক সেমিনারে গবেষকরা এ তথ্য জানান।

বঙ্গোপসাগরের তলদেশে থাকা বিরল খনিজসম্পদের ভূ-তাত্ত্বিক জরিপের ফল তুলে ধরেন সমুদ্র গবেষণা ইনস্টিটিউটের ভূ-তাত্ত্বিক ওশানোগ্রাফি বিভাগের সিনিয়র বৈজ্ঞানিক কর্মকর্তা মোহাম্মদ জাকারিয়া। সেমিনারে তিনি বলেন, ‘আমাদের সাগরের তলদেশে ৩ হাজার ১০০ বর্গ কিলোমিটার এলাকাজুড়ে সম্ভাব্য ১০০ ট্রিলিয়ন ঘনফুট গ্যাসের মজুদ পাওয়া গেছে, যা দিয়ে ১০০ বছরের চাহিদা মিটাতে পারব।’

ড. শফিক বলেন, ‘দেশের মানুষের অর্থনৈতিক উন্নয়নে এ দেশের বিজ্ঞানীরা অতীতে অনেক প্রযুক্তিও উদ্ভাবন করেছেন। কিন্তু সেগুলো মাঠপর্যায়ে কাজে লাগানো হয়নি। হ্যাচারিতে পোনার খাদ্য হিসেবে ব্যবহারের জন্য প্রতিবছর বিদেশ থেকে কোটি কোটি টাকার আর্টিমিয়া আমদানি করা হয়। অথচ তিন দশক আগেই এ দেশের বিজ্ঞানীরা সফলভাবে আর্টিমিয়া তৈরির প্রযুক্তি উদ্ভাবন করেছেন।’

সেমিনারে বাংলাদেশ সমুদ্র গবেষণা ইনস্টিটিউটের মোট সাতটি প্রবন্ধ উপস্থাপন করা হয়।

বাংলাদেশ সমুদ্র গবেষণা ইনস্টিটিউটের মহাপরিচালক শফিকুর রহমানের সভাপতিত্বে সেমিনারে প্রধান অতিথি ছিলেন বিজ্ঞান ও প্রযুক্তি মন্ত্রণালয়ের অতিরিক্ত সচিব ইতি রানী পোদ্দার।

আগামীনিউজ/জনী