Dr. Neem
Dr. Neem Hakim

পাওনা টাকা চাওয়ায় বৈজ্ঞানিক কর্মকর্তা খুন


আগামী নিউজ | নিজস্ব প্রতিবেদক প্রকাশিত: নভেম্বর ১৫, ২০২১, ০২:২৫ পিএম
পাওনা টাকা চাওয়ায় বৈজ্ঞানিক কর্মকর্তা খুন

সাবেক বৈজ্ঞানিক কর্মকর্তাকে হত্যার অভিযোগে গ্রেপ্তার দুজন।

ঢাকাঃ রাজধানীর শ্যামলী সড়কে প্রকাশ্যে বাংলাদেশ গম গবেষণা ইনস্টিটিউটের সাবেক প্রধান বৈজ্ঞানিক কর্মকর্তা আনোয়ার শহীদকে (৭২) ছুরিকাঘাতে হত্যার ঘটনায় হত্যাকাণ্ডের মূল পরিকল্পনাকারী জাকির হোসেন ও ছুরিকাঘাতে হত্যাকারী সাইফুল ইসলামকে গ্রেফতার করেছে র‍্যাপিড অ্যাকশন ব্যাটালিয়ন (র‍্যাব)।

সোমবার (১৫ নভেম্বর) দুপুরে গ্রেপ্তারদের ব্যাপারে বিস্তারিত জানাতে রাজধানীর কারওয়ান বাজারের মিডিয়া সেন্টারে সংবাদ সম্মেলন ডাকা হয় র‌্যাবের পক্ষ থেকে।

সংবাদ সম্মেলনে র‍্যাবের লিগ্যাল অ্যান্ড মিডিয়া উইংয়ের পরিচালক কমান্ডার খন্দকার আল মঈন জানান, ধারের ১২ লাখ টাকা চাওয়ায় গম গবেষণা ইনস্টিটিউটের সাবেক মুখ্য বৈজ্ঞানিক কর্মকর্তা আনোয়ার শহীদকে রাস্তায় প্রকাশ্য ছুরি মেরে হত্যা করা হয়। এই ঘটনার প্রধান পরিকল্পকারী ছিলেন নিহত আনোয়ারের দীর্ঘদিনের পরিচিত জাকির হোসেন। হত্যাকাণ্ডের ঘটনায় দুইজন র‌্যাবের জালে ধরা পড়লে তাদের কাছ থেকে এমন তথ্য পায় এলিট ফোর্সটি।

ছবিঃ সংগৃহীত

র‌্যাবের এই কর্মকর্তা জানান, দিনাজপুরে চাকরি করার সময় আনোয়ার শহীদের সঙ্গে জাকিরের সুসম্পর্ক গড়ে ওঠে। জাকিরের মাধ্যমেই সেখানে ২০ শতাংশ জমি কিনেছিলেন বৈজ্ঞানিক কর্মকর্তা আনোয়ার। সেখানে ঘর তৈরি করে উপার্জিত অর্থ দিয়ে দুস্থদের সহযোগিতা করতেন, যা শুধু জাকিরই জানতো। এমনকী পরিবারের কেউই বিষয়টি জানতেন না। এছাড়া আনোয়ারের কাছ থেকে ১২ লাখ টাকা ধার নিয়েছিল জাকির। সেই টাকা ফেরত চাইলে পরিকল্পনা বৈজ্ঞানিক কর্মকর্তাকে হত্যার পরিকল্পনা করা হয়। দীর্ঘ একবছর চলছিল তাদের পরিকল্পনা। পরিকল্পনা অনুযায়ী বৃহস্পতিবার সন্ধ্যা সাড়ে সাতটার পর আদাবর থানা এলাকার হলিলেন গলিতে ছুরিকাঘাতে হত্যা করা হয় বৈজ্ঞানিক কর্মকর্তা আনোয়ারকে।

হত্যাকাণ্ডের ঘটনার পর অভিযুক্তদের ধরতে অভিযানে নামে র‌্যাব। পরে রাজধানীর গাবতলী ও দিনাজপুরে পৃথক অভিযান চালিয়ে হত্যাকাণ্ডের মূল পরিকল্পনাকারী জাকির হোসেন ও ছুরিকাঘাতে হত্যাকারী সাইফুল ইসলামকে গ্রেপ্তার করে এলিট ফোর্সটি।

আনোয়ার শহীদের বাসা দক্ষিণপুরে রাজিয়া টাওয়ারে আর গ্রামের বাড়ি নীলফামারীর ডোমারের ছোট রাওতায়।

আগামীনিউজ/বুরহান