Agaminews
Dr. Neem
Dr. Neem Hakim

খাজানগরে শতাধিক রাইচ মিলের ছাই পরিবেশ ও কৃষি জমি নষ্ট হচ্ছে


আগামী নিউজ | হুমায়ুন কবির, কুষ্টিয়া জেলা প্রতিনিধি প্রকাশিত: আগস্ট ৪, ২০২১, ০৫:৪২ পিএম
খাজানগরে শতাধিক রাইচ মিলের ছাই পরিবেশ ও কৃষি জমি নষ্ট হচ্ছে

ছবি: সংগৃহীত

কুষ্টিয়াঃ দেশের দ্বিতীয় বৃহত্তম চালের মোকাম কুষ্টিয়ার খাজানগর শতাধিক অটো রাইস মিলের ছায়ে পরিবেশ ও কৃষি জমি নষ্ট হচ্ছে। এ জেলায় চার শতাধিক ম্যানুয়াল রাইচ মিল রয়েছে। ম্যানুয়াল রাইচ মিলের ছাই সার্বজনীন ক্ষতি করে না। অটো রাইচ মিলাররা তাদের মিলের ব্লোয়ার মেশিনে ছাই নিচে নামানোর বদলে ছাই বাতাসে উড়িয়ে দেয়, এতে ছাই অপসারণে খরচ বাচে। পরিবেশ দপ্তরের ছাড়পত্র ঝুলিয়ে রাখে।অভিযোগের কোন প্রতিকার নেই। অচিরেই বন্ধ হয়ে যাবে ম্যানুয়াল চাতাল মিল। 
 
অটো রাইচ মিলের পরিবেশ দূষণ সৃষ্টিকারীর মায়াকান্না আমরা মাণ অক্ষুন্ন রাখিব, চলছে অবিরাম। 
 
দূষণ মুক্ত করতে একটি প্রতিষ্ঠান ও নেই কেহ ওয়াটার টিটমেন্ট প্লান্ট বসিয়ে পানি শোধন করে না। দূষিত পানি জমির উর্বরতা নষ্ট করছে ।আগে এক বিঘা জমিতে বিশ বাইশ মন ধান উৎপন্ন হত এখন হয় মাত্র দশ বার মন। এ অঞ্চলে প্রায় তের টি অটো মিলের নামে পরিবেশ দূষণ সৃষ্টিকারী হিসাবে প্রাথমিক ভাবে অভিযুক্ত তাদের বিরুদ্ধে অভিযান চালানো সম্ভব নয় কারণ এখন করোনা অন্য সময় অন্য পরিস্থিতি সৃষ্টি হবে,দৃষ্টি, এ ভাবে চলবে বছরের পর বছর।
 
এ বিষয়ে খাজানগর অটো রাইস মিল সমিতির সভাপতি ও সাধারণ সম্পাদকের সাথে কথা বললে তিনারা বলেন, পানি শোধনাগার প্লান ও বায়ু দূষণের যে প্লান্টি রয়েছে সে বিষয়ে আমাদের কাজ চলছে অনতিবিলম্বে সমাধান হবে। 
 
এ বিষয়ে পরিবেশ অধিদপ্তরের কুষ্টিয়া জেলার উপ-পরিচালক মোঃ আতাউর রহমান জানান, হাইকোর্টের নির্দেশনা মোতাবেক আমরা প্রতিটা মিল এবং অটো রাইস মিলের মালিকদের নির্দেশনা দিয়েছি তারা যেন তাদের বয়লারের পানির বিষয়টি নিজেদের সংশোধনাগার বানাতে হবে এবং কোন প্রকার ছায় বাহিরে না যায় সে নির্দেশনা তাদেরকে দেওয়া আছে। তবে বেশ কিছু মিল মালিকরা এ বিষয়ে এখনও পড়ি নাই তাদের বিরুদ্ধে আইনানুগ ব্যবস্থা গ্রহণ করা হবে।