August
Dr. Neem on Daraz
Dr. Neem Hakim

সরকারের অবহেলায় করোনা সংক্রমণ বাড়ছে: মোশাররফ


আগামী নিউজ | নিজস্ব প্রতিবেদক প্রকাশিত: জুলাই ১, ২০২২, ০২:২০ পিএম
সরকারের অবহেলায় করোনা সংক্রমণ বাড়ছে: মোশাররফ

ঢাকাঃ সরকারের অবহেলার কারণে দেশে চতুর্থবারের মতো করোনাভাইরাস সংক্রমণ বাড়ছে বলে মন্তব্য করেছেন বিএনপির স্থায়ী কমিটির সদস্য ড. খন্দকার মোশাররফ হোসেন।

তিনি বলেন, কয়েক মাস আগে চীনে করোনা সংক্রমণ বৃদ্ধি পেলেও সরকার তাতে কোনো গুরুত্ব দেয়নি। এখন আবার করোনা বৃদ্ধি পাচ্ছে আমাদের নেতৃবৃন্দ আক্রান্ত। এখানেও সরকারের ব্যর্থতা এবং অসাবধানতা।

শুক্রবার (১ জুলাই) নয়াপটনে বিএনপির কেন্দ্রীয় কার্যালয়ের নিচতলায় আয়োজিত এক দোয়া মাহফিলে এসব কথা বলেন তিনি।

বিএনপি চেয়ারপারসন বেগম খালেদা জিয়া এবং মহাসচিব মির্জা ফখরুল ইসলাম আলমগীরসহ দলের নেতৃবৃন্দের সুস্থতা ও ভয়াবহ বন্যা থেকে পরিত্রাণ পাওয়ার জন্য ঢাকা মহানগর দক্ষিণ বিএনপি এই দোয়া ও মিলাদ মাহফিলের আয়োজন করে। 

মোশাররফ বলেন, দেশের সবচেয়ে জনপ্রিয় নেত্রী খালেদা জিয়া একটি বানোয়াট মামলায় ফরমায়েশি রায়ে কারাদণ্ডপ্রাপ্ত। বর্তমানে প্রশাসনিক অর্ডারে সাময়িকভাবে মুক্ত। তিনি অত্যন্ত অসুস্থ, কিছুদিন পূর্বে হাসপাতালে তার অস্ত্রপচার করা হয়েছে। তিনি অত্যন্ত খারাপ অবস্থায় দিন পার করছেন।

খালেদা জিয়া অসুস্থতার জন্য সরকারকে দায়ী করে তিনি বলেন, ২০১৮ সালে তাকে নির্জন কারাগারে রাখা হয়েছিল, যেখানে আর কোনো মানুষ ছিল না। এমন একাকীত্ব অস্বাভাবিক পরিবেশে তাকে রাখা হয়েছিল। যে নেত্রী পায়ে হেঁটে গাড়িতে উঠে কারাগারে গিয়েছিলেন, কিন্তু সম্পূর্ণ অসুস্থ অবস্থায় সাময়িক মুক্তি পান। অর্থাৎ দেশনেত্রীকে কারাগারে রেখে তিলে তিলে মৃত্যুর মুখে ঠেলে দিয়েছে সরকার।

বিএনপির স্থায়ী কমিটির এই নেতা বলেন, খালেদা জিয়া এতটাই অসুস্থ তার চিকিৎসকরা বারবার বিদেশে চিকিৎসার জন্য নিতে বলছেন। কেননা বাংলাদেশে তার সেই চিকিৎসা নেই, তাকে উন্নত চিকিৎসার জন্য বিদেশে পাঠানো প্রয়োজন কিন্তু সরকার কর্ণপাত করেনি। আজকে বিএনপি নেতাকর্মীসহ সবার দাবি তাকে চিকিৎসার জন্য বিদেশে পাঠানো হোক। সরকারের পাঠানোর প্রয়োজন নেই। খালেদা জিয়া নিজেই চিকিৎসার জন্য যাবেন। কিন্তু তাকে সাময়িক মুক্তি দেওয়ার সময় যে শর্ত দেওয়া হয়েছে তা প্রত্যাহার করা হোক। সরকার তা করছে না।  

তিনি আরও বলেন, সরকারের কাছে একটাই অস্ত্র, খালেদা জিয়াকে, ভারপ্রাপ্ত চেয়ারম্যান তারেক রহমানকে এবং বিএনপি পরিবারকে দাবিয়ে রেখে তারা ক্ষমতায় থাকতে চায়।

বিএনপির অন্যতম এই নীতিনির্ধারক বলেন, আজকে বিএনপি নেতাকর্মীসহ সবার দাবি খালেদা জিয়াকে চিকিৎসার জন্য বিদেশে পাঠানো হোক। সরকারের তাকে পাঠানোর প্রয়োজন নেই। খালেদা জিয়া নিজেই চিকিৎসার জন্য যাবেন। কিন্তু তাকে সাময়িক মুক্তি দেওয়ার সময় যে শর্ত দেওয়া হয়েছে সেই শর্ত প্রত্যাহার করা হোক। সরকার সেই শর্ত প্রত্যাহার করবে না। তিলে তিলে মৃত্যুর মুখে ঠেলে দিতে চায়। বিএনপি চেয়ারপারসন বেগম খালেদা জিয়া, ভারপ্রাপ্ত চেয়ারম্যান তারেক রহমান এবং বিএনপি পরিবারকে দাবিয়ে রেখে সরকার ক্ষমতায় থাকতে চায়।

বন্যার প্রসঙ্গ টেনে বিএনপির স্থায়ী কমিটির এই সদস্য বলেন, সিলেট বিভাগে আবার পানি বৃদ্ধি পাচ্ছে। এই পানিগুলো কোথা থেকে আসছে? আমাদের ওপারের দেশ (ভারত) থেকে পানিগুলো আসছে। ফারাক্কাসহ ৫৪টি বাঁধ দেওয়া রয়েছে। বর্ষাকালে যখন অতিবৃষ্টি হয় তখন তাদের (ভারত) স্বার্থে সবগুলো গেট একসঙ্গে খুলে দেওয়া হয়। আর এই পানি বাংলাদেশে চলে আসে। বাংলাদেশে শুষ্ক মৌসুমে পানি কম থাকার কারণে নদী ভরাট হয়ে যাচ্ছে। হঠাৎ করে যখন পানি আসে তখন পানি সরার কোনো জায়গা পায় না। এ কারণেই বাংলাদেশ এতো বন্যা হচ্ছে। যখন আমাদের পানির প্রয়োজন নেই তখন আমাদের বন্যায় ভাসিয়ে দেওয়া হয়। যখন পানির প্রয়োজন হয় তখন পানি না দেওয়ার কারণে নদীগুলো মরা নদীতে পরিণত হয়েছে। আমাদের জীববৈচিত্র কৃষি দৃঢ়ভাবে বিপর্যস্ত এবং ভবিষ্যতে আরও বিপর্যস্ত।

সরকারের নতজানু পররাষ্ট্রনীতির কারণে এমনটা হচ্ছে দাবি করে খন্দকার মোশাররফ বলেন, এ কারণেই রোহিঙ্গাদের ফেরত পাঠানো যাচ্ছে না। 

দোয়া মাহফিলে উপস্থিত ছিলেন বিএনপি চেয়ারপারসনের উপদেষ্টা আব্দুস সালাম, সাংগঠনিক সম্পাদক আব্দুস সালাম আজাদ, স্বেচ্ছাসেবক বিষয়ক সম্পাদক মীর সরাফত আলী সপু, রফিকুল আলম মঞ্জু প্রমুখ।

এমবুইউ