ডিজিটাল নিরাপত্তা আইন সংশোধনসহ ৫ দাবিতে সাংবাদিকদের সমাবেশ


আগামী নিউজ | নিজস্ব প্রতিবেদক প্রকাশিত: অক্টোবর ২২, ২০২২, ০১:৩০ পিএম
ডিজিটাল নিরাপত্তা আইন সংশোধনসহ ৫ দাবিতে সাংবাদিকদের সমাবেশ

ঢাকাঃ ডিজিটাল নিরাপত্তা আইনের আপত্তিকর ধারা সংশোধন, সংবাদমাধ্যমে ৯ম ওয়েজবোর্ড রোয়েদাদ বাস্তবায়নসহ ৫ দাবিতে বিক্ষোভ সমাবেশ করছেন ঢাকার সাংবাদিকরা। অনতিবিলম্বে দাবি আদায় না হলে আরও বৃহৎ পরিসরে আন্দোলনের ডাক দেওয়া হবে বলে জানিয়েছেন সাংবাদিক নেতারা।

শনিবার (২২ অক্টোবর) জাতীয় প্রেসক্লাবের সামনের রাস্তায় বসে ঢাকা সাংবাদিক ইউনিয়ন (ডিইউজে একাংশ) আয়োজিত বিক্ষোভ সমাবেশে এ দাবি জানানো হয়।

বিক্ষোভে অংশ নেওয়া সাংবাদিকরা বলেন, একজন সাংবাদিক সকাল ৮টায় বাসা থেকে বের হয়ে রাত ১১টায় বাসায় ফেরে। অনেক প্রতিষ্ঠানের কথা আমরা শুনতে পাই, তারা বলেন সাংবাদিকদের ৮ ঘণ্টা বলতে কোনো ডিউটি নেই। সাংবাদিকদের ডিউটি সারাদিন। সাংবাদিকদের অধিকারই যদি প্রতিষ্ঠা না হয়, তাহলে গণমাধ্যম আইন দিয়ে আমাদের কী হবে। মালিক পক্ষের সুবিধার জন্য কেন আইন করা হবে। তাই আমাদেরকে ঐক্যবদ্ধ হয়ে কথা বলতে হবে। সাংবাদিকরা কি শ্রম আইনেও পড়ে না। তাহলে কেন সাংবাদিকদেরকে এভাবে খাটানো হচ্ছে। 

তারা আরও বলেন, অনেক প্রতিষ্ঠান ঠিক মতো বেতন দিচ্ছে না। আমাদের কোনো বেতন কাঠামো নেই। ৮ম, ৯ম ওয়েজবোর্ড বাস্তবায়ন ঠেকে আছে কয়েক বছর ধরেই। কিন্তু বাস্তবায়ন হচ্ছে না। অবিলম্বে আমাদের দাবিগুলো মেনে নিতে হবে। না হলে রাস্তায় নেমে আমরা দাবি আদায় করে নেব।

ঢাকা সাংবাদিক ইউনিয়নের সভাপতি সোহেল হায়দার চৌধুরী বলেন, বর্তমানে ডিজিটাল নিরাপত্তা আইন সাংবাদিকের ওপর খড়গ হিসেবে ঝুলছে। যখনই কোনো রিপোর্ট কারও বিরুদ্ধে যায়, যখনই সাংবাদিকরা সামাজিক যোগাযোগ মাধ্যমে কোনো কিছু লিখেন, তখনই বিভিন্ন মহল থেকে সাংবাদিকদের বিরুদ্ধে মামলা দেওয়া হয়। আমরা সরকারের সঙ্গে এ নিয়ে বারবার কথা বলেছি। তাতে কোনো লাভ হয়নি। 

ডিজিটাল নিরাপত্তা আইনের অধীনে ৩০টি প্রতিষ্ঠানকে পরিকাঠামো ঘোষণা করা হয়েছে। কিন্তু বলা হয়নি যে, সাংবাদিকরা কোনো প্রতিবেদন করলে বা সেখানে গেলে কোনো হয়রানি হবে না তা বলা হয়নি। 

তিনি বলেন, সাংবাদিকদের ওয়েজ বোর্ডের কথা বলা হয়েছে, কিন্তু তা বাস্তবায়ন হয়নি। আমাদের কোনো বেতন কাঠামো নেই। প্রিন্ট পত্রিকার যতটুকু আছে, অনলাইন বা ইলেকট্রনিক মিডিয়ায় সেটিও নেই। আমরা বারবার সেকথা বলে আসছি।

তিনি আরও বলেন, আমাদের আন্দোলনে একবার হেলমেট বাহিনী হামলা করেছিল। স্বরাষ্ট্রমন্ত্রী আশ্বাস দিয়েছেন বিচার হবে কিন্তু আজও বিচার হয়নি। সাংবাদিকরা এই নিত্যপণ্যের বৃদ্ধিরবাজারে এক প্রকার মানবেতর জীবনযাপন করছে। তাদের কেউ দেখার নেই।

তাদের অন্যান্য দাবিগুলো হলো-

১. সংবাদমাধ্যমে ৯ম ওয়েজবোর্ড রোয়েদাদ বাস্তবায়ন
২. সাংবাদিকদের উপর হামলা-মামলা বন্ধ
৩. ডিজিটাল নিরাপত্তা আইনের সংশোধন
৪. পেশাদার সাংবাদিকদের অ্যাক্রিডিটেশন কার্ড কমানোর সিদ্ধান্ত বাতিল
৫. সাপ্তাহিক ছুটি দুদিন বাস্তবায়ন।

ডিইউজের সভাপতি সোহেল হায়দার চৌধুরীর সভাপতিত্বে সাংগঠনিক সম্পাদক জিহাদুর রহমান জিহাদের সঞ্চালনায় বক্তব্য রাখেন— বিএফইউজের সাবেক সভাপতি মঞ্জরুল আহসান বুলবুল, বিএফইউজের সভাপতি ওমর ফারুক, মহাসচিব দীপ আজাদ চৌধুরী, ডিইউজের সাবেক সভাপতি কুদ্দুস আফ্রাদ, জাতীয় প্রেসক্লাবের কোষাধ্যক্ষ শাহেদ চৌধুরী, ডিইউজের সাবেক সভাপতি কুদ্দুস আফ্রাদ, সাধারণ সম্পাদক আক্তার হোসেন, ঢাকা রিপোর্টার্স ইত্যাদি সভাপতি নজরুল ইসলাম মিঠু, সাবেক সভাপতি সফিকুল করীম সাবু, সাব এডিটর কাউন্সিলের সাধারণ সম্পাদক আবুল হোসের হৃদয়, ঢাকা বহুমুখী সাংবাদিক পরিবারের সাধারণ সম্পাদক মফিজুর রহমান খান বাবু, ডিইউজের সহসভাপতি মানিক লাল ঘোষ, কোষাধ্যক্ষ আশরাফুল ইসলাম, প্রচার ও প্রকাশনা সম্পাদক রাজু হামিদ, দপ্তর সম্পাদক আমানউল্লাহ আমান, সদস্য মহিউদ্দিন পলাশ, সাংবাদিক তপন কুমার বিশ্বাস, মিজানুর রহমান, বায়েজিদ মুন্সি, মুনসুর হোসেন, আসাদুজ্জামান আসাদ প্রমুখ। 

এমএম