Dr. Neem on Daraz
Dr. Neem Hakim

ফুটবল খেলাকে কেন্দ্র করে জাবির দুই হলের সংঘর্ষ, আহত ৩০


আগামী নিউজ | বিশ্ববিদ্যালয় প্রতিনিধি, জাবি প্রকাশিত: ডিসেম্বর ৬, ২০২২, ১১:৩০ পিএম
ফুটবল খেলাকে কেন্দ্র করে জাবির দুই হলের সংঘর্ষ, আহত ৩০

জাহাঙ্গীরনগর বিশ্ববিদ্যালয়ে আন্তঃহল ফুটবল খেলাকে কেন্দ্র করে সংঘর্ষে জড়িয়েছে মওলানা ভাসানী ও আ ফ ম কামাল উদ্দিন হলের ছাত্ররা। এতে অন্তত ৩০ জন আহত হয়েছেন। তাদের মধ্যে অন্তত চারজনের অবস্থা আশঙ্কাজনক বলে জানা গেছে।

মঙ্গলবার (৬ ডিসেম্বর) সন্ধ্যা ৭টার দিকে বিশ্ববিদ্যালয়ের  বটতলা এলাকায় দুপক্ষের শিক্ষার্থীদের মধ্যে ওই সংঘর্ষ বাধে।

প্রত্যক্ষদর্শীদের মতে, বিকালে ক্যাম্পাসে বিশ্ববিদ্যালয়ের আ ফ ম কামালউদ্দিন হল ও মওলানা ভাসানী হলের শিক্ষার্থীদের মধ্যে চ্যান্সেলর কাপ ফুটবলের খেলা চলছিল। দুই হলের মধ্যকার  ম্যাচের একপর্যায়ে  কামাল উদ্দিন হল একটি গোল দিলে রেফারি ফাউলের সংকেত দেন। পরে বিষয়টি নিয়ে  মাঠেই উভয়পক্ষ বিবাদে জড়িয়ে পড়ে। এ ঘটনার জের ধরে  সন্ধ্যা ৭টার দিকে ক্যাম্পাসের বটতলায় অবস্থান নেয় শিক্ষার্থীরা। একই সময় দুই পক্ষের মধ্যে ইটের খোয়া বিনিময় হয়। পাশাপাশি দুটি হলের শিক্ষার্থীদেরকে দেশীয় অস্ত্র নিয়ে মহড়া দিতে দেখা যায়।

সরেজমিনে দেখা যায়, বিশ্ববিদ্যালয়ের বটতলার ৩৫টির মতো দোকানপাটে ব্যাপক ভাংচুর করা হয়েছে । উভয় হলের প্রাধ্যক্ষরা উপস্থিত থেকেও ঘটনা সামাল দিতে ব্যর্থ হয়েছেন।

সংঘর্ষে গুরুতর আহতদের মধ্যে চারজনের পরিচয় জানা গেছে। তারা হলেন ভাসানী হলের ৪৭ ব্যাচের প্রতীক, ৪৮ ব্যাচের সোহান এবং কামালউদ্দিন হলের ইতিহাস বিভাগের ৫০ ব্যাচের অর্পণ ও দর্শন বিভাগের ৪৮ ব্যাচের রাসেল।

এ বিষয়ে জাবি চিকিৎসা কেন্দ্রের ভারপ্রাপ্ত মেডিকেল অফিসার শামসুর রহমান জানিয়েছেন, এখন পর্যন্ত ৩০ জন আহত হয়ে মেডিকেল সেন্টারে জড়ো হয়েছেন। এরমধ্যে চারজনকে আশঙ্কাজনক অবস্থায় সাভারের এনাম মেডিকেল কলেজে পাঠানো হয়েছে।

এদিকে, জাবির প্রক্টর আ স ম ফিরোজ উল হাসান বলেন, বিকালে খেলার মাঠে রেফারির সিদ্ধান্ত নিয়ে ঘটনার সূত্রপাত বলে জানতে পেরেছি। আমরা ঘটনার শুরু থেকেই দুটি গ্রুপের সাথে কথা বলছি। মীমাংসার চেষ্টা করছি। সর্বশেষ তারা হলে ফিরে গিয়েছে। এখন পরিস্থিতি কিছুটা শান্ত।

সার্বিক বিষয়ে উপাচার্য অধ্যাপক ড. নূরুল আলম গণমাধ্যমকে জানান, আহতদের চিকিৎসাসেবা নিশ্চিতে তাদের দেখতে তিনি হাসপাতালে যাচ্ছেন। পরবর্তীতে যা কিছু করার প্রয়োজন তা করব।

এসএস