Dr. Neem on Daraz
Dr. Neem Hakim

জাতীয় ক্রীড়া পুরস্কার পেল ইবির লোকপ্রশাসন বিভাগের দুই শিক্ষার্থী


আগামী নিউজ | বিশ্ববিদ্যালয় প্রতিনিধি, ইবি প্রকাশিত: মে ১১, ২০২২, ০৭:৫১ পিএম
জাতীয় ক্রীড়া পুরস্কার পেল ইবির লোকপ্রশাসন বিভাগের দুই শিক্ষার্থী

ইসলামী বিশ্ববিদ্যালয়ের (ইবি) লোকপ্রশাসন বিভাগের সাবেক দুই শিক্ষার্থী জাতীয় ক্রীড়া পুরস্কার পেয়েছেন। তারা হলেন, বিভাগের ১৯৯৫-৯৬ শিক্ষাবর্ষের শিক্ষার্থী কাজল দত্ত এবং ২০০০-২০০১ শিক্ষাবর্ষের শাহরিয়া সুলতানা। ক্রীড়াক্ষেত্রে গৌরবোজ্জ্বল অবদানের স্বীকৃতি হিসেবে ২০১৩ থেকে ২০২০ সালের জন্য বিভিন্ন ক্যাটাগরিতে দেশের ৮৫ কৃতি ক্রীড়াবিদ ও সংগঠককে এই পুরস্কার প্রদান করা হয়েছে।

বুধবার (১১ মে) ওসমানী স্মৃতি মিলনায়তনে আয়োজিত অনুষ্ঠানে প্রধান অতিথি হিসেবে ভার্চুয়ালি উপস্থিত থেকে এ পুরস্কার প্রদান করেন প্রধানমন্ত্রী শেখ হাসিনা। তার পক্ষ থেকে পুরস্কার তুলে দেন যুব ও ক্রীড়া প্রতিমন্ত্রী জাহিদ আহসান রাসেল। পুরস্কার হিসেবে প্রত্যেককে একটি আঠারো ক্যারেট মানের ২৫গ্রাম ওজনের স্বর্ণপদক, এক লাখ টাকার চেক এবং একটি সনদপত্র দেয়া হয়।

জানা গেছে, ইবির সাবেক শিক্ষার্থী কাজল দত্ত ২০১৬ সালের খেলোয়াড় (ভারোত্তোলন) ক্যাটাগরিতে পুরস্কার পেয়েছেন। আরেক শিক্ষার্থী শাহরিয়া সুলতানা ২০১৭ সালের খেলোয়াড় (ভারোত্তোলন) ক্যাটাগরিতে পুরস্কার পেয়েছেন। এর আগে তারা দু'জনই ৭ম বাংলাদেশ গেমসে স্বর্ণপদক জিতেন।

জানা গেছে, জাতীয় ক্রীড়া পুরস্কারের জন্য পত্রিকায় বিজ্ঞপ্তি প্রকাশের পর ২০১৩ সালের জন্য ৪৯টি, ২০১৪ সালের জন্য ৫৩টি, ২০১৫ সালের জন্য ৩০টি, ২০১৬ সালের জন্য ৩৩টি, ২০১৭ সালের জন্য ৩৯টি এবং ২০১৮ সালের জন্য ৫৮টি  ২০১৯ ও ২০২০ সালের জন্য ৭৮টিসহ মোট ৩৪০ জন ক্রীড়াবিদ ও ক্রীড়া সংগঠক আবেদন পত্র জমা দেন।

সেখান থেকেই তথ্য যাচাই বাছাইয়ের জন্য মন্ত্রণালয় মোট ৩টি কমিটি গঠন করে। যাচাই-বাছাই শেষে সংক্ষিপ্ত তালিকা প্রস্তুত করে তারা। তালিকাটি জাতীয় বাছাই কমিটির কাছে পাঠানো হয়। জাতীয় বাছাই কমিটি ২০১৩ সালের জন্য ১১ জন, ২০১৪ সালের জন্য ১০ জন, ২০১৫ সালের জন্য ১১ জন, ২০১৬ সালের জন্য ১৩ জন, ২০১৭ সালের জন্য ১১ জন, ২০১৮ সালের জন্য ১০ জন,  ২০১৯ সালের জন্য ১১ জন এবং ২০২০ সালের জন্য ৮ জনসহ সর্বমোট ৮৫ জন ক্রীড়াবিদ ও ক্রীড়া সংগঠককে জাতীয় ক্রীড়া পুরস্কার দেয়ার সুপারিশ করে।

এম বি রিয়াদ/এসএসআই