Dr. Neem on Daraz
Dr. Neem Hakim

মাঝরাতে শাবি ক্যাম্পাসে ছাত্রীদের বিক্ষোভ


আগামী নিউজ | নিজস্ব প্রতিবেদক প্রকাশিত: জানুয়ারি ১৪, ২০২২, ১১:৪৫ এএম
মাঝরাতে শাবি ক্যাম্পাসে ছাত্রীদের বিক্ষোভ

ছবিঃ সংগৃহীত

সিলেটঃ পৌষের শীত উপেক্ষা করে বিভিন্ন সমস্যা এবং সেগুলো সমাধানের দাবিতে মধ্যরাতে ক্যাম্পাসে অবস্থান নিয়ে বিক্ষোভ করেছেন শাহজালাল বিজ্ঞান ও প্রযুক্তি বিশ্ববিদ্যালয়ের (শাবিপ্রবি) বেগম সিরাজুন্নেসা চৌধুরী হলের আবাসিক ছাত্রীরা।

বৃহস্পতিবার (১৩ জানুয়ারি) দিবাগত রাত ১২টা থেকে উপাচার্যের বাসভবনে প্রবেশের ফটকের সামনে অবস্থান নিয়ে বিক্ষোভ করেছেন শিক্ষার্থীরা।

এর আগে রাত সাড়ে ১০টায় বেগম সিরাজুন্নেসা চৌধুরী হলের সামনে অবস্থান নেন শিক্ষার্থীরা। পরে সাড়ে ১১টায় বিক্ষোভ সহকারে উপাচার্যের বাসভবনের মূল ফটকের সামনে এসে অবস্থান নেন তারা।

জানা গেছে, বৃহস্পতিবার রাত ৮টার পর হলের বিভিন্ন সমস্যা নিয়ে শিক্ষার্থীরা রিডিং রুমে আলোচনা করেন। আলোচনা শেষে সিদ্ধান্তগুলো হল প্রভোস্ট সহযোগী অধ্যাপক জাফরিন আহমেদ লিজাকে ফোনে কল করে জানান। এসময় শিক্ষার্থীরা তাকে হলে আসতে বললে তিনি অপারগতা প্রকাশ করেন। এমনকি দুর্ব্যবহার করেন বলেও অভিযোগ শিক্ষার্থীদের।

শিক্ষার্থীদের অভিযোগ, হলে নানা সমস্যা রয়েছে। এসব সমস্যার সমাধান চেয়ে তারা হল প্রভোস্টকে ফোনকল করলে তিনি তাদের সঙ্গে দুর্ব্যবহার করেন।

পরে আলোচনার মাধ্যমে সব সমস্যার ইতিবাচক সমাধান দেওয়া হবে- উপাচার্যের এমন আশ্বাসের পর বিক্ষোভ স্থগিত করে হলে ফিরেছেন শাহজালাল বিজ্ঞান ও প্রযুক্তি বিশ্ববিদ্যালয়ের (শাবিপ্রবি) আবাসিক ছাত্রীরা।

বিক্ষোভ চলাকালে রাত দুইটার দিকে বাসভবন থেকে বেরিয়ে আসেন উপাচার্য অধ্যাপক ফরিদ উদ্দিন আহমেদ। এসময় শিক্ষার্থীদের কাছ থেকে তাদের সমস্যার কথা শুনেন তিনি। এরপর সমস্যা সমাধানের আশ্বাস দিলে রাত আড়াইটার পর ছাত্রীরা হলে ফিরে যান।

এদিকে আজ শুক্রবার বেলা ১১টায় উপাচার্যের সঙ্গে শিক্ষার্থীদের একটি প্রতিনিধি দলের আলোচনা হওয়ার কথা রয়েছে। সেখানেই উপাচার্যের সামনে তাদের দাবিগুলো উপস্থাপন করা হতে পারে।

এদিকে রাতে হল প্রভোস্ট জাফরিন আহমেদ লিজা বলেন, আমি অসুস্থ। আমার বর্তমান শারীরিক অবস্থা ছাত্রীদের জানিয়েছি। তাদের সঙ্গে পরে আলোচনার কথাও বলেছি। এমনকি এ বিষয়ে হলের অফিসিয়াল ফেসবুক গ্রুপেও একটি পোস্ট দেওয়া হয়। কিন্তু ছাত্রীরা হঠাৎ কেন এমন করছে, তা বুঝতে পারছি না।

আগামীনিউজ/বুরহান