Dr. Neem
Dr. Neem Hakim

বেরোবিতে “টেকসই ও নবায়নযোগ্য শক্তির উন্নয়ন” শীর্ষক সেমিনার অনুষ্ঠিত


আগামী নিউজ | বেরোবি প্রতিনিধি প্রকাশিত: ডিসেম্বর ৫, ২০২১, ০৬:৫৭ পিএম
বেরোবিতে “টেকসই ও নবায়নযোগ্য শক্তির উন্নয়ন” শীর্ষক সেমিনার অনুষ্ঠিত

ছবিঃ আগামী নিউজ

রংপুরঃ বাংলাদেশে ক্রমবর্ধমান শিল্পায়নসহ বিভিন্ন খাতে প্রতিনিয়ত জ্বালানির চাহিদা বাড়ছে। এই চাহিদা পূরণে পরিবেশ বান্ধব টেকসই এবং নবায়নযোগ্য শক্তি উদ্ভাবন করা প্রয়োজন। এজন্য উচ্চশিক্ষা প্রতিষ্ঠানগুলোতে এ বিষয়ে অধিকতর গবেষণা করতে হবে।

রবিবার (০৫ ডিসেম্বর) বেগম রোকেয়া বিশ্ববিদ্যালয়ের একাডেমিক ভবনের ভার্চুয়াল ক্লাসরুমে ইলেকট্রিক্যাল এন্ড ইলেকট্রনিক ইঞ্জিনিয়ারিং বিভাগের উদ্যোগে আয়োজিত “বাংলাদেশে টেকসই ও নবায়নযোগ্য শক্তির উন্নয়ন” শীর্ষক সেমিনারে বিশেষজ্ঞরা এসব কথা বলেন।

বেগম রোকেয়া বিশ্ববিদ্যালয়ের উপাচার্য প্রফেসর ড. মোঃ হাসিবুর রশীদের সভাপতিত্বে অনুষ্ঠিত সেমিনারে প্রধান অতিথির বক্তৃতা করেন বাংলাদেশ এনার্জি এন্ড পাওয়ার রিসার্চ কাউন্সিলের (বিইপিআরসি) চেয়ারম্যান (সচিব) সত্যজিৎ কর্মকার, বিশেষ অতিথি ছিলেন বেরোবি বিজ্ঞান অনুষদের ডিন ড. মোঃ মিজানুর রহমান ও নর্দান ইলেক্ট্রিসিটি সাপ্লাই কোম্পানি লিমিটেডের (নেসকো) প্রধান প্রকৌশলী ইঞ্জিনিয়ার সাহাদাৎ হোসেন সরকার।

স্বাগত বক্তৃতা করেন ইলেকট্রিক্যাল এন্ড ইলেকট্রনিক ইঞ্জিনিয়ারিং বিভাগের বিভাগীয় প্রধান ড. ফেরদৌস রহমান।

উপাচার্য প্রফেসর ড. মোঃ হাসিবুর রশীদ বলেন, তারুণ্যদীপ্ত উদ্ভাবনী শক্তি দ্রুত উন্নয়নে সহায়তা করবে। উপযুক্ত প্লাটফর্ম পেলে টেকসই ও নবায়নযোগ্য জ্বালানির প্রসারেও তরুণরা অবদান রাখতে পারবে। এজন্য বিশ্ববিদ্যালয় পর্যায়ে অত্যাধনিক গবেষণাগার প্রতিষ্ঠা করতে হবে।

প্রধান অতিথি সত্যজিৎ কর্মকার বলেন, বিশ্ববিদ্যালয় পর্যায়ের শিক্ষার্থীদের মধ্যে জ্বালানি দক্ষতা ও সংরক্ষণ বিষয়ে সচেতনতা সৃষ্টি এবং উদ্ভাবনী ধারণা বিকাশে অত্যাধুনিক গবেষণাগার প্রয়োজন। এক্ষেত্রে বেগম রোকেয়া বিশ্ববিদ্যালয়ে বিইপিআরসির পক্ষ থেকে একটি গবেষণাগার প্রতিষ্ঠা করা হবে।

সেমিনারে গবেষণা সম্প্রসারণ দপ্তরের পরিচালক ড. মোঃ তানজিউল ইসলাম, ছাত্র উপদেষ্টা মোঃ নুরুজ্জামান খান, বহিরাঙ্গন কার্যক্রম পরিচালক সাব্বীর আহমেদ চৌধুরীসহ ইলেকট্রিক্যাল এন্ড ইলেকট্রনিক ইঞ্জিনিয়ারিং বিভাগের শিক্ষক-শিক্ষার্থীরা অংশ নেন। 

অনুষ্ঠানের শুরুতে অতিথিবৃন্দকে ফুল ও শুভেচ্ছা স্মারক দিয়ে বরণ করা হয়।

আগামীনিউজ/এসআই