Dr. Neem on Daraz
Dr. Neem Hakim

কাগজের অভাবে শ্রীলঙ্কায় পরীক্ষা বন্ধ, আমরা কি উদ্যোগ নিতে পারি?


আগামী নিউজ | ড. নিম হাকিম প্রকাশিত: মার্চ ২১, ২০২২, ১১:০৩ পিএম
কাগজের অভাবে শ্রীলঙ্কায় পরীক্ষা বন্ধ, আমরা কি উদ্যোগ নিতে পারি?

ড. নিম হাকিম। ছবিঃ সংগৃহীত

মহামারি করোনাতে পর্যটন খাতে আয় কমে যাওয়ায় মারাত্মক অর্থনৈতিক সংকটে পড়েছিল শ্রীলঙ্কা। সেই সময় বিপুল অংকের বৈদেশিক মুদ্রা দিয়ে সাহায্যের হাত বাড়িয়ে দিয়েছিল বাংলাদেশ সরকার। এটা নিঃসন্দেহে প্রশংসার দাবিদার। শ্রীলঙ্কাকে বাংলাদেশ সরকারের অর্থনৈতিক সাহায্য দেয়ার বিষয়টি গুরুত্ব সহকারে প্রকাশ করেছে বিশ্বের একাধিক সংবাদ মাধ্যম, যা বাংলাদেশের মান মর্যাদা অনেক বৃদ্ধি করেছে বিশ্ববাসীর কাছে।

বর্তমান সময়ে বিশ্বব্যাপি আলোচিত একটি বিষয় কাগজের অভাবে পরীক্ষায় বসতে পারছে না শ্রীলঙ্কার স্কুলপড়ুয়া লাখ লাখ শিক্ষার্থী। বিভিন্ন সংবাদ মাধ্যমের খবরে জানা গেছে, শ্রীলঙ্কার লক্ষাধিক মাধ্যমিক স্কুল শিক্ষার্থীর পরীক্ষা বাতিলের নোটিশ দেওয়া হয়েছে। আমদানির জন্য প্রয়োজনীয় ডলারের অভাবে রাজধানী কলম্বোয় পরীক্ষার প্রশ্নপত্র ছাপার কাগজ ফুরিয়ে গেছে। এছাড়াও সোমবার থেকে শুরু হতে যাওয়া আগামী এক সপ্তাহের জন্য নির্ধারিত পরীক্ষাগুলো কাগজের তীব্র ঘাটতির কারণে অনির্দিষ্টকালের জন্য স্থগিত করা হয়েছে। ১৯৪৮ সালে স্বাধীনতার পর সবচেয়ে ভয়াবহ আর্থিক সংকটের মধ্য দিয়ে যাচ্ছে শ্রীলঙ্কা। ‘ওখানকার স্কুলের অধ্যক্ষরা কোনো পরীক্ষাই নিতে পারবেন না কারণ প্রয়োজনীয় কাগজ ও কালি আমদানির জন্য প্রয়োজনীয় বৈদেশিক মুদ্রা সরবরাহ করতে অক্ষম শ্রীলঙ্কা।’ শ্রীলঙ্কায় কেন্দ্রীয় ব্যাংকের রিজার্ভে অত্যাবশ্যকীয় দ্রব্য আমদানির জন্য প্রয়োজনীয় বৈদেশিক মুদ্রার ঘাটতি থাকার কারণে অর্থনৈতিক সংকট দেখা দিয়েছে।

এই অবস্থায় আমাদের দেশের ছাত্র-ছাত্রী, অভিভাবক, বিভিন্ন পেশার মানুষ ও সরকার যদি একটি তহবিল গঠন করে সেখানে স্বপ্রনোদিত হয়ে আমরা বাংলাদেশের মানুষ সাধ্যমত কিছু অর্থ জমা রাখতে পারি। তাতে বিপুল পরিমান অর্থ  সাহায্য আসবে সেই টাকা দিয়ে বাংলাদেশের কাগজ কোম্পানি গুলো কাছ থেকে ভ্যাটমুক্ত ভাবে কাগজ ক্রয় করে, সেই কাগজ যদি আমরা দ্রুত ভাবে শ্রীলঙ্কায় পাঠাই তাহলে ছাত্র-ছাত্রীরা  পরীক্ষা দিতে পারবে। এতে বাংলাদেশের মান মর্যাদা শুধু শ্রীলঙ্কায় নয় সারা বিশ্ববাসীর কাছে প্রশংসিত হবে। আমি আশা করছি বাংলাদেশ সরকার এই উদ্যোগ নিবেন। সরকার থেকে যদি এরকম উদ্যোগ নেওয়া হয় তাহলে অনেকেই সেই তহবিলে সামর্থ মত অর্থ দিবেন বলে আমার বিশ্বাস।