Dr. Neem on Daraz
Dr. Neem Hakim

গরুপাচার মামলায় গ্রেফতার তৃণমূল নেতা অনুব্রত মণ্ডল


আগামী নিউজ | আন্তর্জাতিক ডেস্ক প্রকাশিত: আগস্ট ১১, ২০২২, ০১:৫০ পিএম
গরুপাচার মামলায় গ্রেফতার তৃণমূল নেতা অনুব্রত মণ্ডল

ঢাকাঃ অবশেষে গরুপাচার মামলায় সিবিআইয়ের হাতে গ্রেফতার হলেন পশ্চিমবঙ্গের প্রভাবশালী তৃণমূল নেতা অনুব্রত মণ্ডল। বৃহস্পতিবার (১১ আগস্ট) সকালে বোলপুরের নিচুপট্টির বাড়িতে হানা দেয় ভারতের কেন্দ্রীয় তদন্তকারী সংস্থাটি।

এসময় দেড়ঘণ্টা জিজ্ঞাসাবাদ করা হয় তাকে। তদন্তে অসহযোগিতার অভিযোগে এরপরই গ্রেফতার করা হয় বীরভূম জেলা তৃণমূলের এই সভাপতিকে।

জানা গেছে, আজই আসানসোল আদালতে হাজির করা হবে অনুব্রতকে। তবে বাড়ি থেকে বের করার পর কোথায় নিয়ে যাওয়া হচ্ছে অনুব্রতকে, সে বিষয়ে স্পষ্টভাবে কিছুই জানায়নি সিবিআই।

বৃহস্পতিবার সকাল ১০টার কিছুক্ষণ আগে অনুব্রতর নীচুপট্টির বাড়িতে পৌঁছান সিবিআই কর্মকর্তারা। সঙ্গে কেন্দ্রীয় বাহিনী। তারা অনুব্রতর বাড়িতে ঢুকে সব দরজায় তালা মেরে দেন। নিয়ে নেওয়া হয় বাড়ির সবার মোবাইল ফোন। পরিস্থিতি এমন হয় যে, অনুব্রতর দেহরক্ষীরা পর্যন্ত বাড়িতে ঢুকতে পারছিলেন না। পরে অবশ্য অনুব্রতের দেহরক্ষীদের প্রধানকে ভেতরে ঢুকতে দেওয়া হয়। ঘণ্টাখানেক পর অনুব্রতকে বাড়ি থেকে বার করা হয়।

ধারণা করা হচ্ছে দুর্গাপুরে সিবিআইয়ের ক্যাম্প অফিসে তাকে নিয়ে যাওয়া হবে। সেখানে দফায় দফায় তাকে জেরা করবে সিবিআই।

শিক্ষক নিয়োগ কেলেঙ্কারিতে জড়িত থাকার দায়ে তৃণমূলের আরেক নেতা পার্থ চট্টোপাধ্যায়কে গ্রেপ্তারের কয়েকদিন যেতে না যেতেই মন্ডলকে গ্রেপ্তার করেছে সিবিআই।

দেশটির কেন্দ্রীয় এই তদন্ত সংস্থা অনুব্রত মন্ডলকে গ্রেপ্তারের আগে অন্তত ১০ বার তলব করেছিল। কিন্তু তিনি শারীরিক অসুস্থতার কথা জানিয়ে সিবিআইয়ের তলবে সাড়া দেননি। এর আগে গরু পাচার মামলার তদন্তের অংশ হিসাবে সিবিআইয়ের কর্মকর্তারা তাকে দুবার জিজ্ঞাসাবাদ করেছিলেন। কলকাতার এসএসকেএম হাসপাতাল থেকে তাকে ভর্তি করানোর প্রয়োজন নেই বলে জানানোর পর গ্রেপ্তার করা হয়েছে।

২০২০ সালে সিবিআইয়ের একটি এফআইআর দায়েরের পর তদন্তে গরু পাচার কেলেঙ্কারিতে উঠে আসে অনুব্রত মন্ডলের নাম। সিবিআইয়ের মতে, ২০১৫ থেকে ২০১৭ সালের মধ্যে ভারতীয় সীমান্তরক্ষী বাহিনী ২০ হাজারের বেশি গবাদি পশু জব্দ করেছিল। সীমান্ত দিয়ে বাংলাদেশে পাচারের সময় এসব পশু জব্দ করা হয়।

এমবুইউ