August
Dr. Neem on Daraz
Dr. Neem Hakim

ছড়াচ্ছে মাঙ্কিপক্স, যুক্তরাষ্ট্রে জরুরি অবস্থা


আগামী নিউজ প্রকাশিত: আগস্ট ৫, ২০২২, ০৯:৫৭ এএম
ছড়াচ্ছে মাঙ্কিপক্স, যুক্তরাষ্ট্রে জরুরি অবস্থা

ঢাকাঃ করোনাভাইরাস মহামারির মধ্যেই বিশ্বের বহু দেশে ছড়িয়ে পড়েছে আরেক সংক্রামক ভাইরাস মাঙ্কিপক্স। এমনকি আক্রান্তও বাড়ছে লাফিয়ে লাফিয়ে। এমন অবস্থায় স্বাস্থ্য খাতে জরুরি অবস্থা জারি করেছে মার্কিন যুক্তরাষ্ট্র। 

স্থানীয় সময় বৃহস্পতিবার (৪ আগস্ট) মার্কিন স্বাস্থ্যমন্ত্রী এই কথা ঘোষণা করেন। এই পদক্ষেপের ফলে মাঙ্কিপক্সের বিরুদ্ধে লড়াই করার জন্য অতিরিক্ত তহবিল এবং সরঞ্জাম ব্যবহারের পথ উন্মুক্ত হবে বলে আশা করা হচ্ছে। শুক্রবার (৫ আগস্ট) এক প্রতিবেদনে এই তথ্য জানিয়েছে বার্তাসংস্থা রয়টার্স।

দেশটির স্বাস্থ্য ও মানবসেবা মন্ত্রী জেভিয়ের বেসররা বলেন, এই রোগটি মোকাবিলায় পরবর্তী ধাপে ব্যবস্থা নেওয়ার জন্য প্রস্তুত, যুক্তরাষ্ট্রের সাধারণ মানুষের উচিত মাঙ্কিপক্সকে গুরুত্বসহকারে নেওয়া এবং এটি মোকাবিলায় আমাদের সহায়তা করার জন্য দায়িত্ব নেওয়ার আহ্বান জানাচ্ছি।

জরুরি স্বাস্থ্য পরিস্থিতি ৯০ দিনের জন্য কার্যকর থাকবে, তবে পরবর্তী তা বাড়িয়ে নেওয়া যেতে পারে। যুক্তরাষ্ট্রের স্থানীয় সময় বৃহস্পতিবার (৪ আগস্ট) পর্যন্ত দেশজুড়ে এ পর্যন্ত ৬ হাজার ৬০০ জন মাঙ্কিপক্সে শনাক্ত হয়েছেন। যার বেশির ভাগই শনাক্ত নিউ ইয়র্ক অঙ্গরাজ্যে। বিশেষজ্ঞদের মতে, প্রকৃত আক্রান্তের সংখ্যা হিসেবের চেয়ে অনেকে বেশি হতে পারে।

মাঙ্কিপক্সের প্রাদুর্ভাব ঠেকাতে এখন পর্যন্ত ৬ লাখ জেনিওয়াস ভ্যাকসিন সরবরাহ করেছে যুক্তরাষ্ট্র। এটি মূলত গুটি বসন্ত রোগের বিরুদ্ধে তৈরি হয়েছিল। এখন মাঙ্কিপক্সের বিরুদ্ধে ব্যবহার হচ্ছে।

বিরল সংক্রমণ রোগ মাঙ্কিপক্স বিশ্বজুড়ে দ্রুত শনাক্ত বাড়তে থাকায় সম্প্রতি একে বৈশ্বিক জনস্বাস্থ্য জরুরি অবস্থা জারি করে বিশ্ব স্বাস্থ্য সংস্থা (ডব্লিউএইচও)। রোগটির সংক্রমণ ঠেকাতে দরিদ্র অঞ্চলগুলোর মানুষকে রক্ষায় প্রয়োজনীয় পদক্ষেপ গ্রহণে উন্নত দেশগুলোর প্রতি আহ্বান জানান সংস্থাটির মহাপরিচালক।

এর আগে সংক্রমণ বৃদ্ধির জেরে গত জুলাই মাসের শেষের দিকে বিশ্ব স্বাস্থ্য সংস্থা (ডব্লিউএইচও) মাঙ্কিপক্সকে গ্লোবাল হেলথ ইমার্জেন্সি বা বিশ্ব স্বাস্থ্য জরুরি অবস্থা হিসাবে ঘোষণা করে। গত ২৭ জুলাই ডব্লিউএইচও’র প্রধান টেড্রোস আধানম গেব্রেইয়েসুস সাংবাদিকদের বলেন, মাঙ্কিপক্সের এই প্রাদুর্ভাব কমানো যায়। তবে সবচেয়ে ভাল পন্থা হল ঝুঁকির রাস্তা থেকে সরে আসা।

তিনি বলেন, এক্ষেত্রে ‘নিজের জন্য ও অপরের জন্য নিরাপত্তা রাখা ও নিজের সেক্স পার্টনারের সংখ্যা কমানো’ প্রয়োজন। তিনি আরও বলেন, এই বার্তা সেইসব পুরুষদের জন্য ‘যারা পুরুষসঙ্গীদের সঙ্গে সঙ্গমে লিপ্ত হন।’

ডব্লিউএইচও’র প্রধান আরও বলেন, ‘যদি আমরা (যৌনসঙ্গী বাছাইয়ের ক্ষেত্রে) আর একটু সংযমী ও সচেতন হই, সেক্ষেত্রে এই রোগের ছড়িয়ে পড়া ঠেকানো সম্ভব। এই রোগ থেকে আত্মরক্ষা অনেকটাই নির্ভর করছে নিজের ওপর।’

করোনা মহামারির জন্য ২০২০ সালে জরুরি অবস্থা জারি করা হয়েছিল যুক্তরাষ্ট্রে। এর আগে, ২০১৭ সালে জিকা ভাইরাসের জন্য জারি করা হয় জরুরি অবস্থা।

এমবুইউ