Dr. Neem on Daraz
Dr. Neem Hakim

ভারতে ২৪ ঘণ্টায় আড়াই লাখের বেশি করোনা রোগী শনাক্ত


আগামী নিউজ | আন্তর্জাতিক ডেস্ক প্রকাশিত: জানুয়ারি ১৭, ২০২২, ০৪:১২ পিএম
ভারতে ২৪ ঘণ্টায় আড়াই লাখের বেশি করোনা রোগী শনাক্ত

ছবিঃ সংগৃহীত

ঢাকাঃ কঠোর বিধিনিষেধ, নিয়মিত ও বুস্টার ডোজের টিকাদান এবং কোভিড পরীক্ষার ওপর জোর দিয়েও ভারতে ঠেকানো যাচ্ছে না করোনাভাইরাস সংক্রমণের ঊর্ধ্বগতি। ভারতের কেন্দ্রীয় স্বাস্থ্য মন্ত্রণালয় সূত্রের বরাত দিয়ে আনন্দবাজার অনলাইন জানায়, দেশটিতে গত ২৪ ঘণ্টায় ২ লাখ ৫৮ হাজার ৮৯ জনের করোনা শনাক্ত হয়েছে।

ভারতে এই প্রথম ওমিক্রনে সক্রিয় আক্রান্তের নিরিখে শীর্ষ স্থানে উঠে এসেছে পশ্চিমবঙ্গ। মোট আক্রান্তের নিরিখে দ্বিতীয় স্থানে থাকলেও বর্তমানে পশ্চিমবঙ্গে সক্রিয় ওমিক্রন আক্রান্তের সংখ্যা সবচেয়ে বেশি।

এ মুহূর্তে পশ্চিমবঙ্গে সক্রিয় ওমিক্রন রোগীর সংখ্যা ১ হাজার ৬৫০ জন। তবে মোট আক্রান্তের নিরিখে শীর্ষে এখনও মহারাষ্ট্র।

ভারতের কেন্দ্রীয় স্বাস্থ্য মন্ত্রণালয় সূত্র জানায়, ভারতে দৈনিক করোনা সংক্রমণের হার ও মৃত্যুর সংখ্যা বেড়েছে। রোববার দৈনিক সংক্রমণের হার ছিল ১৬ দশমিক ২৮ শতাংশ, যা বেড়ে সোমবার হয়েছে ১৯ দশমিক ৬৫ শতাংশ।

গত ২৪ ঘণ্টায় ভারতে ৩৮৫ জনের মৃত্যু হয়েছে, যা রোববারের তুলনায় বেশি। রোববার ভারতে করোনা প্রাণ কেড়ে নিয়েছিল ৩১৪ জনের।

পুরো মহামারি পর্বে ভারতে এ নিয়ে মোট মৃত্যু হল ৪ লাখ ৮৬ হাজার ৪৫১ জনের। সংক্রমণের সাপ্তাহিক হার ১৪ দশমিক ৪১ শতাংশ।

ভারতে এখন পর্যন্ত মোট তিন কোটি ৭৩ লাখ ৮০ হাজার ২৫৩ জন করোনা আক্রান্ত হয়েছেন। স্বাস্থ্য মন্ত্রণালয়ের পরিসংখ্যান অনুযায়ী, মোট আক্রান্তের ৪ দশমিক ৪৩ শতাংশ বর্তমানে আক্রান্ত।

বর্তমানে ভারতে মোট সক্রিয় করোনা আক্রান্তের সংখ্যা ১৪ লাখ ১৭ হাজার ৮২০ জন। ভারতে করোনায় সুস্থতার হার ৯৪ দশমিক ২৭ শতাংশ, যা জানুয়ারির প্রথম দিকেও ৯৭ শতাংশের উপরে ছিল।

যেভাবে রোগীর সংখ্যা বাড়ছে, তাতে দৈনিক তিন লাখ করোনা সংক্রমণের যে পূর্বাভাস বিশেষজ্ঞরা দিয়েছিলেন, তা ছুঁতে খুব বেশি দিন সময় লাগার কথা নয়।

বিশেষজ্ঞরা আগেই বলেছিলেন, ওমিক্রনের প্রভাবে ভারতে যে সাম্প্রতিক করোনা-স্ফীতি দেখা দিয়েছে, তাতে জানুয়ারির শেষে দৈনিক ১০ লাখ পর্যন্ত পৌঁছতে পারে সংক্রমণ।

উদ্বেগ বাড়াচ্ছে ওমিক্রন আক্রান্তের সংখ্যাও। এই মুহূর্তে ভারতে ওমিক্রন আক্রান্তের সংখ্যা ৮ হাজার ২০৯ জন, যার মধ্যে ৩ হাজার ১০৯ জন ইতোমধ্যেই সুস্থ হয়ে উঠেছেন।

আগামীনিউজ/নাসির