Dr. Neem on Daraz
Dr. Neem Hakim

দুপচাঁচিয়ায় ক্লাবে ওরা ক্রিকেটার নাকি জুয়াড়ী?


আগামী নিউজ | উপজেলা প্রতিনিধি, দুপচাঁচিয়া (বগুড়া) প্রকাশিত: জুন ২২, ২০২২, ০৪:৩৩ পিএম
দুপচাঁচিয়ায় ক্লাবে ওরা ক্রিকেটার নাকি জুয়াড়ী?

বগুড়াঃ মাদক, জুয়া থেকে তরুন প্রজন্মদের দূরে রাখতে হলে প্রয়োজন খেলাধূলা। খেলাধূলা কে কেন্দ্র করে কোন ক্লাব গড়ে উঠলে, সেই ক্লাবের প্রতি সবার দৃষ্টিভঙ্গিতে যোগ হয় সাধুবাদ।কিন্তু সাধুবাদের আড়ালে যদি চলে মাদক অথবা জুয়ার আসর, তাহলে তেমন ক্লাব সমাজ, জাতি তথা দেশের জন্য কতটা আত্মঘাতি ?

বগুড়ার দুপচাঁচিয়া উপজেলায় একটি কথিত ক্রিকেট ক্লাবে জুয়ার আড্ডা থেকে তরুন প্রজন্মের কয়েক'জন জুয়াড়ী আটক হওয়ায় এমন প্রশ্ন এখন ঘুরপাক খাচ্ছে অনেকের মনে।

মঙ্গলবার (২১ জুন) রাতে ৯ জন জুয়াড়ীকে আটক করে থানা পুলিশ। আটকের পর তাদের বিরুদ্ধে জুয়া আইনে মামলা দায়ের করা হয়েছে। বুধবার (২২ জুন) তাদের আদালতেও পাঠানো হয়েছে বলে জানিয়েছেন দুপচাঁচিয়া থানার অফিসার ইনচার্জ আবুল কালাম আজাদ।

আটককৃতরা, দুপচাঁচিয়া উপজেলার জিয়ানগর চকপাড়া এলাকার ফেরদৌস সরদারের ছেলে আয়াতুল্লাহ সরদার(২১),  ওবায়দুল হকের ছেলে রায়হান আলী (২১), বাদশা সরকারের ছেলে তানজিদ সরকার (১৯), বেলাল হোসেনের ছেলে শফিউল আলম(২০), শাহজাহান আলীর ছেলে আব্দুল হাদী রিফাত(২১), জয়নাল খানের ছেলে রাশেদ খান(৩৫), জিয়ানগর মন্ডলপাড়া এলাকার জয়মুদ্দিন মন্ডলের ছেলে আতাউল ইসলাম(২৮), জিয়ানগর লক্ষীমন্ডপ এলাকার কামরুজ্জামানের ছেলে আশিক আলী(১৯) এবং জিয়ানগর খাঁপাড়ার আজিজুল হকের ছেলে আবু বক্কর সিদ্দিক(২৫)।

পুলিশ সূত্রে জানা গেছে, জুয়া খেলার গোপন খবরে দুপচাঁচিয়া উপজেলার জিয়ানগর বাজারের দক্ষিন পাশে একটি সরকারি পরিত্যক্ত ভবনে লেবার অফিসের পশ্চিমের কক্ষে কথিত একটি ক্রিকেট ক্লাবে অভিযান পরিচালনা করে এসআই বকুল হোসেন ও এসআই মোসাদ্দেকূল ইসলামসহ সঙ্গীয় ফোর্স। সেখানে জুয়া খেলার সময় ৯ জন জুয়াড়ী আটককৃত হয়। অভিযানকালে নগদ ২ হাজার ৬ শত ৯০ টাকা ও ২ সেট তাস উদ্ধার করে জব্দ করা হয়।

ক্রিকেটক্লাবে অপরাধমূলক কার্যক্রম সম্পর্কে জানতে চাইলে আদমদীঘি হাজী তাছের আহম্মেদ মহিলা কলেজের সমাজ বিজ্ঞান বিভাগের প্রভাষক শামশুজ্জামান ছালাম বলেন, তরুন প্রজন্মরা সহজেই অপরাধ প্রবনতায় আকৃষ্ট হয়। সংঘবদ্ধ সংগঠনে আদর্শিক নেতৃত্ব না থাকলে সংগঠন বা ক্লাব কোন কাজে আসে না। কাজেই এরকম ক্লাবে ক্রিকেটের পৃষ্ঠপোষকতার চেয়ে জুয়া তথা বিভিন্ন অপরাধমূলক কাজের চর্চা প্রাধান্য পায়।

তিনি আরও বলেন, অপরাধ থেকে দূরে রাখতে ক্লাবগুলোতে আদর্শিক নেতৃত্বের পাশাপাশি দিক নির্দেশনামূলক চর্চা থাকা জরুরী।

দেওয়ান পলাশ/এমবুইউ