Dr. Neem on Daraz
Dr. Neem Hakim

পাষন্ড ছেলেই স্টিলের পাইপ দিয়ে পিতাকে হত্যা রাস্তায় ফেলে রাখে


আগামী নিউজ | গাইবান্ধা প্রতিনিধি প্রকাশিত: জানুয়ারি ১৭, ২০২২, ০৬:২৪ পিএম
পাষন্ড ছেলেই স্টিলের পাইপ দিয়ে পিতাকে হত্যা রাস্তায় ফেলে রাখে

ছেলে সোহান মৃধা

গাইবান্ধা: পারিবারিক কলহের জেরেই পাষন্ড ছেলে পিতাকে নির্মমভাবে স্টিলের পাইপ দিয়ে পিটিয়ে হত্যার পর মহা সড়কে লাশ ফেলে রাখে। পুলিশ ব্যুরো অব ইনভেস্টিগেশন (পিবিআই) এর তদন্তে এমন তথ্যই উঠে এসেছে। লোমহর্ষক এই হত্যাকান্ডের ঘটনাটির মোড় অন্যদিকে ঘুড়িয়ে দিতে পিতাকে হত্যার পর মরদেহ ঢাকা-রংপুর মহাসড়কে ফেলে রাখা হয়। এ ঘটনায় আজিজারের স্ত্রী ও দুই ছেলেকে গ্রেফতার করেছে পুলিশ। গাইবান্ধার গোবিন্দগঞ্জে হোটেল ব্যবসায়ী আজিজার (৫৬) কে হত্যা করেছে তার ছেলে সোহান মৃধা (২২)।

পুলিশ ব্যুরো অব ইনভেস্টিগেশন (পিবিআই) এর গাইবান্ধার কার্যালয়ে এক প্রেস ব্রিফিংএ এসব তথ্য জানান, পিবিআই এর পুলিশ সুপার এ আর এম আলিফ।

গত ১১ জানুয়ারি রাতে গোবিন্দগঞ্জের আশা মনি হোটেলের সামনে গোবিন্দগঞ্জ-বগুড়া হাইওয়ে রাস্তার উপরে আজিজারের রক্তমাখা মরদেহ পড়ে থাকে। এ ঘটনায় পরদিন নিহতের স্ত্রী মেনেকা বেগম বাদি হয়ে  গোবিন্দগঞ্জ থানায় অজ্ঞাত নামে একটি হত্যা মামলা দায়ের করেন। পরদিন ১৩ জানুয়ারি হত্যা মামলাটির তদন্তভার পায় পিবিআই। 

 প্রেস ব্রিফিং এ পুলিশ সুপার আরও জানান, নিহত আজিজার রহমানকে ১১ জানুয়ারি রাত ৯ টার দিকে রাতের খাবার খাওয়ার সময় তার ওপর স্ত্রী সোহাগী বেগম (৪৩) এর মেজ ছেলে সোহান মৃধা বাড়ীতে এসে সোহানের গরু অসুস্থ্য হয়েছে এমন কথা বলে বাবাকে ডেকে নিয়ে যায়। পরে একই দিন রাত সাড়ে ১১ টার দিকে স্বামী আজিজার রহমানের রক্তাক্ত মরদেহ রাস্তায় পড়ে থাকার খবর পান তিনি। ঘটনাস্থল গোবিন্দগঞ্জের আশামনি হোটেলের সামনে গোবিন্দগঞ্জ-বগুড়া হাইওয়ে পাকা সড়কে উপস্থিত হয়ে রাস্তার উপরে রক্তাক্ত ও মৃত  অবস্থায় স্বামী আজিজার রহমানকে মৃত দেখতে পান।

এঘটনায় পরদিন ওই স্ত্রী মেনেকা বেগম বাদি হয়ে অজ্ঞাত নামে গোবিন্দগঞ্জ থানায় একটি হত্যা মামলা দায়ের করেন। পরে পরদিন ১৪ জানুয়ারি বিকেল চারটার দিকে গোবিন্দগঞ্জ থানার বকচর গ্রাম থেকে সন্তেহভাজন আসামী আজিজার রহমানের ছেলে মোঃ সোহান মৃধা (২২) কে গ্রেফতার এবং তাকে নিবিড় জিজ্ঞাসাবাদ করা হয়।

জিজ্ঞাসাবাদে সোহান তার পূর্ব হতে চলে আসা পারিবারিক কলহের জেরে বাবাকে হত্যার কথা স্বীকার করে। পরে তার স্বীকারোক্তিমূলক জবানবন্দির ভিত্তিতে একই দিন রাত পৌনে ৩টার দিকে পিতা আজিজার রহমানকে হত্যাকান্ডে ব্যবহৃত দুই হাত লম্বা স্টিলের পাইপ, রক্তমাখা শার্ট ও গেঞ্জি  আসামি সোহান মৃধার শয়ন কক্ষ হতে ও নির্মাণাধীন বাড়ী থেকে উদ্ধার করা হয়। যা কক্ষের মেঝের মাটির নিচে পুতে রাখা অবস্থায় ছিল। বাবার হত্যায় ব্যবহৃত স্টিলের পাইপ, রক্তমাখা শার্ট ও গেঞ্জি গ্রেফতারকৃত সোহান নিজ হাতে বের করে দেওয়ার পর উদ্ধার করা হয়। গ্রেফতারকৃত আসামী মোঃ সোহান মৃধা তার বাবাকে হত্যার ঘটনাটি স্বীকার করে বিজ্ঞ আদালতে ১৬৪ ধারায় স্বীকারোক্তিমূলক জবানবন্দি দেয়। 

পরবর্তীতে গতকাল ১৫ জানুয়ারি বিকেল চারটার দিকে গাইবান্ধা বাসস্ট্যান্ড থেকে আজিজার রহমানের অপর স্ত্রী ও সোহান মৃধার মাতা সোহাগী বেগম (৪৩)কে গ্রেপ্তার করে পিবিআই।

আগামীনিউজ/শরিফ