Dr. Neem on Daraz
Dr. Neem Hakim

বলাৎকারের চেষ্টা করায় মাদরাসা শিক্ষকের বিশেষ অঙ্গ কাটলো ছাত্র


আগামী নিউজ | নিজস্ব প্রতিবেদক প্রকাশিত: ডিসেম্বর ৩, ২০২১, ০৮:৫৯ পিএম
বলাৎকারের চেষ্টা করায় মাদরাসা শিক্ষকের বিশেষ অঙ্গ কাটলো ছাত্র

ফাইল ছবি

ময়মনসিংহঃ শিক্ষকের সাথে একটি মাহফিলে দেখা ১৬ বছর বয়সী ছাত্রের। একসাথে দু’জনই ধর্মীয় আলোচনা শোনেন। এর মধ্যেই ছাত্রকে রাতের খাবারের জন্য নিজ বাড়িতে আমন্ত্রণ জানান শিক্ষক। ছাত্রও শিক্ষকের আবদার ফেলতে পারেননি। মাহফিল শেষে দু’জনই রওনা হন। পরে ওই ছাত্র আতাবুর রহমানের সাথে হাঁটতে হাঁটতে বাড়ির দিকে যাচ্ছিল।

পথে শিক্ষক আতাবুর রহমান ছাত্রের সাথে আপত্তিকর আচরণ শুরু করেন। এতে ওই ছাত্র বাধা দিলে শিক্ষক তাকে জোরপূর্বক বলাৎকারের চেষ্টা করেন। এ সময় ওই মাদরাসা শিক্ষার্থীর পাঞ্জাবির পকেটে থাকা নখ কাটার যন্ত্র দিয়ে শিক্ষকের বিশেষ অঙ্গ কেটে দেয়। পরে শিক্ষক চিৎকার করলে আশপাশের লোকজন ছুটে এসে শিক্ষার্থীকে আটক করে পুলিশে সোপর্দ করেন।

বুধবার (১ ডিসেম্বর) রাতে ঘটনাটি ঘটেছে ময়মনসিংহের নান্দাইল উপজেলার বেতাগৈর ইউনিয়নের পলাশিয়া গ্রামে। আহত মাদরাসা শিক্ষক আতাবুর রহমান ওই এলাকার বাসিন্দা।

এ দিকে বৃহস্পতিবার (২ ডিসেম্বর) রাত ১০ টার দিকে নান্দাইল থানায় এ ঘটনায় ছাত্রকে আসামি করে মামলা করেছেন আহত শিক্ষকের বাবা।

বিষয়টি নিশ্চিত করেছেন নান্দাইল থানার ভারপ্রাপ্ত কর্মকর্তা (ওসি) মিজানুর রহমান আকন্দ।  

পুলিশ হেফাজতে থাকা ওই শিক্ষার্থীর দাবি, শিক্ষক আতাবুর রহমান বুধবার রাতে খাবারের দাওয়াত দিয়ে বাড়িতে নিয়ে যেতে চান ছাত্রকে। পরে পথে তিনি ছাত্রকে কাছে টেনে নিয়ে শরীরের বিভিন্ন অংশে হাত বোলাতে থাকেন। একপর্যায়ে বলাৎকারের চেষ্টা হলে ছাত্র পকেটে থাকা নেইল কাটারের সঙ্গে থাকা চাকু দিয়ে শিক্ষকের পুরুষাঙ্গে আঘাত করে সেখান থেকে নিজেকে রক্ষা করতে দৌঁড়ে পালানোর চেষ্টা করে। সেসময় স্থানীয়রা ওই ছাত্রকে ধরে পুলিশে সোপর্দ করে।

নান্দাইল থানার ভারপ্রাপ্ত কর্মকর্তা (ওসি) মিজানুর রহমান আকন্দ জানান, মামলার পর ওই মাদরাসা শিক্ষার্থীকে গ্রেফতার দেখানো হয়েছে এবং তাকে আদালতে পাঠানো হবে। বলাৎকারের চেষ্টা অভিযুক্ত ওই শিক্ষক বর্তমানে মমেক হাসপাতালে চিকিৎসাধীন।

আগামীনিউজ/এসআই