Agaminews
Dr. Neem Hakim
শেষ মুহুর্তের প্রচারনায়

সৈয়দপুর পৌর নির্বাচনে উল্টো বাতাস!


আগামী নিউজ | জিকরুল হক, উত্তরাঞ্চল প্রতিনিধি প্রকাশিত: জানুয়ারি ১২, ২০২১, ০৩:৪৩ পিএম
সৈয়দপুর পৌর নির্বাচনে উল্টো বাতাস!

ফাইল ফটো

নীলফামারীঃ জেলার সৈয়দপুর পৌরসভা নির্বাচনের দিনক্ষন যত এগিয়ে আসছে ততই নতুন নতুন ঘটনা যোগ হচ্ছে। বর্তমানে নির্বাচনের বাতাস পুরোপুরি উল্টো দিকে প্রবাহিত হচ্ছে। বিএনপির ভোটাররা লাঙ্গল মার্কার প্রতি ঝুঁকছে।

আগামী ১৬ জানুয়ারী শনিবার ভোট অনুষ্ঠিত হবে। এ সময় পর্যন্ত আসতে ভোটের ঝড়ো হাওয়ার গতি হয়তোবা পুরোপুরি পরিবর্তন হওয়ার পূর্বাভাস মিলেছে বলে একাধিক ভোটারের সঙ্গে কথা বলে জানা গেছে। তবে নৌকা মার্কার ভোটারদের মাঝেও চিন্তার পরিবর্তনের ঝড়ো হাওয়া ধাক্কা মারছে।

পাঁচ মেয়র প্রার্থীর মধ্যে যে তিন প্রার্থীর আলোচনা ভোটারের মুখে মুখে শোনা যাচ্ছে তারা হলেন রাফিকা আকতার জাহান বেবী (নৌকা), বর্তমার মেয়র আমজাদ হোসেন সরকার (নারিকেল গাছ) ও আলহাজ্ব সিদ্দিকুল আলম সিদ্দিক (লাঙ্গল)। অপর দুই প্রার্থী হাফেজ নুরুল হুদা (হাতপাখা) ও রবিউল আউয়াল রবি (মুঠোফোন) তেমন আলোচনায় নেই।

এদের মধ্যে নৌকা মার্কার প্রার্থী বেবীর অতীত কোন রাজনৈতিক ক্যারিয়ার নেই। তিনি আ’লীগ নেতা মরহুম আখতার হোসেন বাদলের স্ত্রী হিসাবেই দলীয় মনোনয়ন পেয়েছেন।

নারিকেল গাছ মার্কার প্রার্থী বর্তমান মেয়র গত পৌর নির্বাচনে ধানের শীর্ষ প্রতীক নিয়ে নির্বাচন করলেও এবারে বিএনপির হাইকমান্ড তাকে মনোনয়ন দেয়নি। এবারে মনোনয়ন দিয়েছিলেন এ্যাড. এস এম ওবায়দুর রহমানকে। বিএনপির এই প্রার্থীর পক্ষে ভোট যুদ্ধে টিকে থাকার মত কোন শক্তি না থাকায় তিনি তার প্রার্থীতা প্রত্যাহার করে নেন। ফলে বিএনপির স্থানীয় নেতাকর্মীরা বাধ্য হয়ে স্বতন্ত্র প্রার্থী আমজাদ হোসেন সরকারের পক্ষে অবস্থান নেন। এই প্রার্থীর জনপ্রিয়তা সুসংহত থাকলেও তিনি নির্বাচনী প্রচারনার মাঠে পুরোপুরি অনুপস্থিত। করোনায় আক্রান্ত হয়ে ঢাকায় একটি হাসপাতালে ভর্তি আছেন এবং ভ্যানটিলেটারের সাহায্যে শ্বাস-প্রশ্বাস নিচ্ছেন বলে ভোটারদের মাঝে জোর গুঞ্জন রয়েছে। এমন অবস্থায় তার ভোটার ও অনুসারীরা মানুষিকভাবে হতাশ হয়ে পড়েছে। ভোটের দিন যত ঘনিয়ে আসছে ততই ওই সব ভোটাররা বিশিষ্ট শিল্পপতি লাঙ্গল মার্কার প্রার্থী আলহাজ্ব সিদ্দিকুল আলম সিদ্দিকের দিকে ঝুকছেন।

স্থানীয় সরকারের জনপ্রতিনিধি যারা নির্বাচিত হন, তাদের সাথে নাড়ির টানের মত জনগণের সর্ম্পক থাকে। সেই হিসাবে নৌকা মার্কার প্রার্থী রাফিকা আকতার জাহান বেবীর সাধারনের সাথে ব্যক্তি যোগাযোগ বলতে শুন্যের কোঠায়। কট্টর ধর্মবাদি মানুষরা আবার নারী নেতৃত্বের ঘোর বিরোধী। এসব কারনে বেবীর মার্কা নৌকা হলেও অনেকেই তাকে মেয়র হিসাবে ভোট দিতে চাইছেন না।

কথা হয় তরুণ ভোটার রেজাউল, কোরবান, মনু আহমেদ, খোরশেদ, গোলাম রব্বানী, মঞ্জুরুল হুদার সঙ্গে। তারা জানায়, নিজস্ব কোন প্রয়োজনে কোন কাজে মহিলা মেয়রের কাছে গেলে তিনি আমাদের কোন ভাবেই চিনবেন না। আর না চেনার ফলে কাজও তড়িৎ গতিতে হবে না। সেদিক থেকে কোন পুরুষ মেয়রের আসনে অধিষ্টিত হলে ব্যক্তিগতভাবে যেমন তিনি চিনবেন, তেমনি অনায়াসে নাগরিক সুবিধাও মিলবে।

ষাটার্ধ্যে পান দোকানী আলাউদ্দিন, রিক্সাচালক সালাম, দিন মজুর একরামসহ একাধিক মানুষ বলেন, তারা সবাই বর্তমান মেয়র আমজাদ হোসেন সরকারের ভক্ত ও বিএনপির সমর্থক। বরাবরই তাকে (আমজাদ) ভোট দিয়ে আসছি। কিন্তু এবারের নির্বাচনে ওই প্রার্থীর শারীরিক অবস্থা সংকটাপন্ন এবং ভোটের মাঠে পুরোপুরি অনুপস্থিত। ফলে একজন অসুস্থ মানুষকে ভোট দিয়ে মেয়র পদে আসীন করা হলে হিতে বিপরীত হওয়ারই সম্ভাবনা রয়েছে।

সে কারনে তারা লাঙ্গল মার্কার প্রার্থী বয়সে তরুন, সদালাপী ও সজ্জন ব্যক্তি হিসেবে সিদ্দিকুল আলম সিদ্দিকের দিকেই সমর্থনের তীর ছুড়ছেন। তাদের মতে আদর্শের দিক থেকে ও বিএনপি ও জাতিয় পার্টির মিল রয়েছে।

সব মিলে মন্দের ভাল হিসাবে জাতীয় পার্টির মনোনীত লাঙ্গল মার্কার প্রার্থীর পক্ষে সমর্থনের মাত্রা দিন দিন বৃদ্ধি পাচ্ছে। তবে ভোটের ফলাফল প্রকৃত অর্থে কি হবে তা জানতে ১৬ জানুয়ারী রাত পর্যন্ত অপেক্ষা করতে হবে।

আগামীনিউজ/এএস