Agaminews
Dr. Neem Hakim
Dr. Neem Hakim

এমপি খোকাকে গ্রেফতারের দাবি


আগামী নিউজ | রফিকুল ইসলাম রফিক, জেলা প্রতিনিধি প্রকাশিত: নভেম্বর ২১, ২০২০, ১০:৩৬ এএম
এমপি খোকাকে গ্রেফতারের দাবি

ছবি: সংগৃহীত

নারায়ণগঞ্জঃ আওয়ামীলীগ নেতা জেলা পরিষদ চেয়ারম্যানের নাম ফলক ভাঙ্গা ফোজদারি অপরাধ ও জাপার এমপি খোকাকে গ্রেফতারের করে শাস্তির দাবি করেছে জেলা আওয়ামীলীগ নেতারা।

জাতীয় পাটির এমপি লিয়াকত হোসেন খোকাকে  আগামী দিনে  সোনারগাঁয়ে তার সকল সন্রাসী কর্মকান্ড প্রতিরোধ করা হবে ঘোষণা দিয়েছেন আওয়ামীলীগের নেতাকর্মীরা। জেলা পরিষদের চেয়ারম্যান ও মহানগর আওয়ামীলীগের সভাপতি আনোয়ার হোসেনের নামফলক ভেঙ্গে তিনি ফৌজদারি অপরাধ করেছেন। এমপি  খোকাকে গ্রেপ্তার করে আইনের আওতায় এনে শাস্তির দাবি জানান নেতৃবৃন্দ। এখন থেকে তাকে কোন ছাড় দেয়া হবে না বলেও জানান তারা।

গতকাল শুক্রবার বিকেলে সোনারগাঁ জি আর ইনস্টিটিউশন স্কুল এন্ড কলেজের সামনে নারায়ণগঞ্জ জেলা পরিষদের উদ্দোগে আয়োজিত মানববন্ধন ও প্রতিবাদ সমাবেশে বক্তারা এসব কথা বলেন।

নারায়নগঞ্জ জেলা পরিষদের প্যানেল চেয়ারম্যান সিরাজূল ইসলামের সভাপতিত্বে বক্তব্য রাখেন সোনারগাঁ উপজেলা চেয়ারম্যান মোশারফ হোসেন, জেলা আওয়ামীলীগের সহ-সভাপতি আরজূ রহমান ভূইয়া, যূগ্মসাধারন সাধারন সম্পাদক জাহাঙ্গীর আলম, সোনারগাঁ উপজেলা আওয়ামীলীগের ভারপ্রাপ্ত সাধারন সম্পাদক মাফূজূর রহমান কালাম,মহানগর আওয়ামীলীগের যূগ্ম সম্পাদক আরমান হোসেন,সাংগঠনিক সম্পাদক জি এম আরাফাত, সোনারগাঁ পৌরসভার মেয়র প্রাথী গাজী মজিবূর রহমান, ফজলে রাব্বি, নাছরিন সূলতানা ঝড়া, জেলা পরিষদ সদস্য আলাউদ্দিন,  শীলারানী পালসহ অনেকে।

সভায় বক্তারা বলেন , লিয়াকত হোসেন খোকা একজন  আইন প্রনেতা হয়ে নিজেই আইন হাতে তূলে নিয়ে শপথ ভঙ্গ করেছেন। তিনি ফোজদারি অপরাধ করেছেন। তাই তাকে গ্রেফতার দাবি জানান।

সভায় বক্তারা আরো বলেন, প্রধানমন্ত্রী শেখ হাসিনার দয়ায়  জাতীয় পার্টি থেকে লিয়াকত হোসেন খোকা এমপি নিবার্চিত হয়ে  বিএনপির জ্বালাও পোড়াও মামলার আসামীদের একের পর জাতীয় পার্টিতে যোগদান করিয়ে  সোনারগাঁয়ে পূনবাসন করছেন। তাদের প্রত্যেকের বিরুদ্ধে একাধিক নাশকতার মামলা রয়েছে। ২০০১ এক সাল থেকে এই জামায়াত বিএনপির বিরুদ্ধে রাজপথে আন্দোলন করে আওয়ামীলীগকে ক্ষমতায় বসিয়েছি। আর আপনি প্রধানমন্ত্রীর দয়ায় এমপি হয়ে তাদের দলে ভীড়িয়ে আওয়ামীলীগের নেতাকর্মীদের বিরুদ্ধে অবস্থান নিয়েছেন।

গত ১৭ নভেম্বর এমপি লিয়াকত হোসেন খোকা  জি আর ইনস্টিটিউশন স্কূল পরিদশর্নে এসে জেলা পরিষদের চেয়ারম্যান আনোয়ার হোসেনের নাম ফলক দেখে ক্ষিপ্ত হয়ে উঠেন এবং তা ভেঙ্গে ফেলার নির্দেশন দেন। তার নির্দেশ  পেয়ে স্হানীয় ক্যাডার সাবিকের নেতৃত্বে একদল যুবক এসে আনোয়ার হোসেনের নাম ফলক ভেঙ্গে দেন।

আগামীনিউজ/মিথুন