Dr. Neem on Daraz
Dr. Neem Hakim

দুঃস্বপ্নের শুরুর পর লড়ছেন মুশফিক-লিটন


আগামী নিউজ | ক্রীড়া ডেস্ক প্রকাশিত: মে ২৩, ২০২২, ১২:৫৪ পিএম
দুঃস্বপ্নের শুরুর পর লড়ছেন মুশফিক-লিটন

ঢাকাঃ মাত্র ৪২ মিনিটে পড়েছে বাংলাদেশের ৫ উইকেট। মিরপুরে দ্বিতীয় ও শেষ টেস্টে শুরুর এই চিত্রই বলে দেয় প্রথম দিনের প্রথম সেশনে কতটা বাজে ছিল স্বাগতিকদের ব্যাটিং। শ্রীলঙ্কার বিপক্ষে রীতিমতো ধ্বংসস্তূপে পরিণত হওয়া দলটির হয়ে প্রতিরোধ গড়ার চেষ্টায় রয়েছেন মুশফিকুর রহিম ও লিটন দাস। তাদের ৪২ রানের অবিচ্ছিন্ন জুটিতে এই সেশনে ৫ উইকেটের পর আর কোনও উইকেট হারায়নি বাংলাদেশ। লাঞ্চ ব্রেকে যাওয়ার আগে প্রথম ইনিংসে সংগ্রহ ছিল ২৩ ওভারে ৫ উইকেটে ৬৬ রান।

টেস্টে বরাবরই ফল আসে মিরপুরে। তাই শুরুতে টস জিতলে ব্যাটিং নেওয়াটা ধরা হয় অবশ্যম্ভাবী। যেহেতু ধীরে ধীরে ব্যাটিং করাটা কঠিন হয়ে পড়ে এই পিচে। কিন্তু দ্বিতীয় ও শেষ টেস্টের শুরুতে নিজেদেরই ঝুঁকির মধ্যে ফেলে দিলো বাংলাদেশ।

টস জিতে ব্যাটিংয়ে নামলেও শুরুতে বাংলাদেশকে কাঁপিয়ে দেয় লঙ্কান পেস বোলিং। প্রথমে দুই ওভারে স্বাগতিকদের দুই ওপেনারকে সাজঘরে পাঠায় শ্রীলঙ্কা।  প্রথম বলটি ফুলার লেংথে দিয়ে মাহমুদুল হাসান জয়কে ভড়কে দিয়েছিলেন পেসার কাসুন রাজিথা। দ্বিতীয় বলে দুর্বল ডিফেন্সের খেসাড়তও দেন বোল্ড হয়ে। ফুটওয়ার্ক ঠিকমতো না করায় বল ব্যাট-প্যাডের ফাঁক দিয়ে আঘাত করে স্টাম্পে। তাতে শূন্য রানে সাজঘরে ফেরেন মাহমুদুল। দ্বিতীয় ওভারে তামিম ইকবালও ফেরেন ডাক মেরে। আরেক পেসার আসিথা ফার্নান্ডোর লেংথ বল লেগ সাইডে খেলতে গেলে তা লিডিং এজ হয়ে জমা পড়ে পয়েন্টে থাকা জয়াবিক্রমার হাতে।

তার পর মাঠে নামা অধিনায়ক মুমিনুল হকের ব্যাটিংও স্বস্তি এনে দিতে পারেনি। বাজে ফর্মে থাকা এই বামহাতি দুটি চার মেরে স্কোরবোর্ডে রান যোগ করলেও বেশিক্ষণ ক্রিজে থাকতে পারেননি। বরং বিপদ বাড়িয়ে দেন আরও। ফার্নান্ডোর অফ স্টাম্পের বাইরের লেংথ বল খেলবেন কি খেলবেন না, এই দ্বিধা-দ্বন্দ্বে ভুগছিলেন। কিন্তু ব্যাট নামাতে দেরি করায় বল এজ হয়ে জমা পড়ে কিপারের গ্লাভসে। শেষ টেস্টে ২ রান করা মুমিনুল এবার করতে পেরেছেন ৯ রান। 

তার পর বাংলাদেশকে ধ্বসস্তুপে পরিণত করে ছাড়েন রাজিথা। প্রথম টেস্টে দারুণ বল করা এই পেসার পর পর জোড়া আঘাতে সাজঘরে ফেরান নাজমুল হোসেন শান্ত ও সাকিব আল হাসানকে। তার সপ্তম ওভারের চতুর্থ ডেলিভারিতে ভেতরে টার্ন করা বল বিলাসী ভঙ্গিতে ড্রাইভ করতে গিয়েছিলেন নাজমুল। কিন্তু বল ব্যাট-প্যাডের ফাঁক দিয়ে স্টাম্পে আঘাত করলে ৮ রানে ফেরেন এই ব্যাটার।

সাকিব তার পরের বলেই এলবিডাব্লিউ হয়েছেন। একই রকম ভেতরে ঢুকে পড়া ডেলিভারি দিলে পরাস্ত হন তিনি। লঙ্কানদের জোরালো আবেদনে আম্পায়ারও সাড়া দেন সঙ্গে সঙ্গে। বামহাতি অলরাউন্ডার রিভিউ নিলেও সাফল্য আসেনি তাতে। আম্পায়ার্স কলে শেষ পর্যন্ত শূন্য রানে ফিরেছেন এই অলরাউন্ডার।  

২৪ রানে ৫ উইকেট পড়ার পর আর কোনও বিপদ ঘটতে দেননি মুশফিক-লিটন। অবশ্য নবম ওভারে স্লিপে ক্যাচ গিয়েছিল লিটনের। ভাগ্যভালো যে আগেই তা মাটিতে ড্রপ খেয়েছে। এর পর ধীরে ধীরে জুটি গড়ে বাকি সময়টা নির্বিঘ্নে পার করেন দুজন।

এমবুইউ