Agaminews
Dr. Neem Hakim
Dr. Neem Hakim

১ ডায়রির দাম ৫ হাজার টাকা!


আগামী নিউজ | নিজস্ব প্রতিবেদক প্রকাশিত: সেপ্টেম্বর ২৩, ২০২০, ০৫:৩৮ পিএম
১ ডায়রির দাম ৫ হাজার টাকা!

ঢাকাঃ দু’দিন আগে গাড়ি চালক আব্দুল মালেকসহ স্বাস্থ্য অধিদপ্তরের ৪৫ কর্মকর্তা- কর্মচারীর সম্পদের হিসেব চেয়ে চিঠি দিয়েছে, দুনীতি দমন কমিশন। গত সোমবার দুদক প্রধান কার্যালয়ের সামনে এমনটা জানান, কমিশন সচিব দিলোয়ার বখত। সেই সাথে গত বছর থেকে স্বাস্থ্য অধিদপ্তরের মোট ৭৫ জনের সম্পদ অনুসন্ধানে নেমেছে দুদক।

খোঁজ নিয়ে জানা যায়, স্বাস্থ্য অধিদপ্তরে একদল কর্মকর্তা-কর্মচারী সিন্ডিকেট করে দুর্নীতি করছে, এমন অভিযোগের ভিত্তিতে ২০১৯ সাল থেকে একটি অনুসন্ধান টিম গঠন করা হয়। আর অনুসন্ধানেই ধীরে ধীরে বেরিয়ে আসছে থলের বিড়াল। স্বাস্থ্য অধিদপ্তরের কর্মকর্তা-কর্মচারীদের দুর্নীতির কথা এখন মানুষের মুখে মুখে। চায়ের দোকান থেকে শুরু করে সর্বত্রই চলছে- এই আলোচনা।

২০২০ সাল ছিল জাতির পিতার শততম জন্মবার্ষিকী। আর এই মুজিব শতবর্ষ উপলক্ষ্যে একটি ডায়রি বের করেন স্বাস্থ্য অধিদপ্তর। স্বাস্থ্য মন্ত্রণালয় সূত্রে জানা যায়, প্রতিটি ডায়রি বাবদ ৫ হাজার টাকা বিল করে স্বাস্থ্য অধিদপ্তর। এবং স্বাস্থ্য ও পরিবার কল্যাণ মন্ত্রণালয় তা পরিশোদও করেন। যদিও মন্ত্রণালয়ের কাছে তা কিছুটা বেশিই মনে হয়েছিল, কিন্তু তবুও তারা তা পরিশোধ করেন।

করোনার এই সময়ে ব্যবসা প্রতিষ্ঠানে স্বাভাবিক সময়ের মতো বেচা-কিনি নেই। ফলে, সকলেই কাজ পাওয়ার জন্য দাম কিছুটা কমিয়ে বলতে পারে। তাই অনেকগুলো দোকান ঘুরে ডায়রিটার দাম যাচাই করা হয়।

অনুসন্ধানে, ডায়রিটি তৈরি করে দিতে সর্বোচ্চ দাম উঠেছে পনেরশ’ টাকা। এরমধ্যে ৬০০ টাকায় এই রকম ডায়রি তৈরি করে দিতে চেয়েছে, কম করে হলেও তিন জন। আর বাকিরা ১ হাজার থেকে বারো শ’ টাকায় এর চেয়ে ভালো ডায়রি তৈরি করে দেওয়ার আশ্বাস দিয়েছে। তবে কম করে ১ হাজার পিস ডায়রি তৈরির অর্ডার করতে হবে, বলে জানান তারা।

সরকারি কেনাকাটায় যে, ঠিক কতটা অনিয়ম বা দুর্নীতি হয়, তা আবার চোখে আঙুল দিয়ে দেখিয়ে দিল এই ডায়রি। হাজার টাকার ডায়রি ৫ হাজারে কিনলেও কোন সমস্যা নেই, টাকা লাগে দিবে গৌরি সেন। আরও মজার বিষয় হচ্ছে, চলতি বছরের এই ডায়রি যে মহাপরিচালকের সময়ে তৈরি করা, স্বাস্থ্য অধিদপ্তরে তিনি আবার বেশ সৎ হিসেবেই পরিচিত। তবে সদ্য সাবেক হওয়া এই মহাপরিচালক এখন আর দায়িত্বে নেই। হয়তো এই ডায়রিতেই লিখতে বসেছেন, আহ! স্বাস্থ্য অধিদপ্তরের দিনগুলি। 

আগামীনিউজ/এমকে