August
Dr. Neem on Daraz
Dr. Neem Hakim

বিক্রি শুরুর তিন ঘণ্টাতেই শেষ ট্রেনের টিকিট, ক্ষোভ যাত্রীদের


আগামী নিউজ | নিজস্ব প্রতিবেদক প্রকাশিত: জুলাই ১, ২০২২, ০১:২০ পিএম
বিক্রি শুরুর তিন ঘণ্টাতেই শেষ ট্রেনের টিকিট, ক্ষোভ যাত্রীদের

ঢাকাঃ পবিত্র ঈদুল আজহা উপলক্ষে শুরু হয়েছে ট্রেনের অগ্রিম টিকিট বিক্রি। শুক্রবার (১ জুলাই) সকাল ৮টা থেকে এই টিকিট বিক্রি শুরু হয়। এদিন দেওয়া হয়েছে ৫ জুলাইয়ের টিকিট। তবে টিকিট বিক্রির প্রথম দিনেই তিন ঘণ্টার মধ্যে প্রায় সব টিকিট শেষ হয়ে যায়।

এমনটিই অভিযোগ করেছেন টিকিট প্রত্যাশীরা। তারা বলছেন, প্রতি লাইনের প্রথম ১৫-২০ জন করে টিকিট পেয়েছে। বাকিরা আর টিকিট পায়নি। দীর্ঘ সময় অপেক্ষা করে যদি টিকিটই না পাই, তাহলে আর কী হলো ভোগান্তি ছাড়া।

শুক্রবার (১ জুলাই) রাজধানীর কমলাপুর প্রধান রেলস্টেশন ঘুরে এ অভিযোগ পাওয়া গেছে।

কমলাপুর রেলস্টেশনে গেলে দেখা যায়, টিকিট পেতে বৃহস্পতিবার রাত থেকেই কাউন্টারে দাঁড়িয়েছেন টিকিট প্রত্যাশীরা।

সাহাদাত হোসেন নামে এক টিকিট প্রত্যাশী বলেন, আমি রাত সাড়ে ১১টায় লাইনে দাঁড়িয়েছি লালমনিরহাটের টিকিটের জন্য। আমার সিরিয়াল নম্বর ছিল ৭৩। আমার সামনে ১৭-১৮ জন থাকতেই টিকিট শেষ! আগামীকালের জন্য আবার সিরিয়াল দিয়েছি।

ঢাকা বিশ্ববিদ্যালয় শিক্ষার্থী আকাশ আলী বলেন, রাত দেড়টায় লাইনে দাঁড়িয়েছি। আমার সিরিয়াল নম্বর ছিল ১৫০। আমি জানি পঞ্চগড় এক্সপ্রেসে এক হাজার সিট থাকে। একজন মানুষ যদি ৩-৪টা করেও টিকিট কাটে তাহলে ৪০০ টিকেট শেষ হওয়ার কথা। কিন্তু এতো টিকিট কোথায় গেলো?

রাজধানীর গেন্ডারিয়া থেকে আসা মো. মহিউদ্দিন বলেন, গতকাল রাত ১০টায় এসে লাইনে দাঁড়িয়ে আছি। শুক্রবার বেলা ১১টায় যখন কাউন্টারের ঠিক কাছে আসলাম তখনই শুনি টিকিট শেষ। দীর্ঘ লাইনে দাঁড়িয়েও টিকিট পেলাম না।

সালেহা বেগম নামে টিকিট প্রত্যাশী বলেন, আমি রাত সাড়ে ৪টায় এসেছি। এখানে দেখলাম টিকিটের জন্য নারীদের লাইনে মারামারি হয়েছে। মানুষ লাইন ভেঙে আগে চলে যাচ্ছে। মারামারিতে আমার কাপড়ও ছিঁড়ে গেছে। টিকিটের দেখা পেলামই না।

এদিকে পবিত্র ঈদুল আজহা উপলক্ষে শুক্রবার থেকে ট্রেনের অগ্রিম টিকিট বিক্রি শুরু হয়েছে। ঢাকায় ছয় স্টেশন এবং গাজীপুরের জয়দেবপুর স্টেশনে পাওয়া যাচ্ছে টিকিট।

এর মধ্যে ঢাকার কমলাপুর রেলস্টেশনে উত্তরাঞ্চলগামী আন্তঃনগর ট্রেনের টিকিট মিলছে। আর রাজশাহী ও খুলনাগামী ট্রেনের টিকিট পাওয়া যাচ্ছে কমলাপুর শহরতলী প্ল্যাটফর্ম থেকে।

ঢাকা বিমানবন্দর থেকে চট্টগ্রাম ও নোয়াখালীগামী সব আন্তঃনগর ট্রেনের টিকিট পাওয়া যাচ্ছে। তেজগাঁও রেলস্টেশনে পাওয়া যাচ্ছে ময়মনসিংহ, জামালপুর ও দেওয়ানগঞ্জগামী ট্রেনের টিকিট।

এছাড়া ঢাকা ক্যান্টনমেন্ট স্টেশনে মিলছে মোহনগঞ্জগামী মোহনগঞ্জ ও হাওর এক্সপ্রেস ট্রেনের টিকিট। ফুলবাড়িয়া রেলস্টেশন থেকে সিলেট ও কিশোরগঞ্জগামী ট্রেনের টিকিট পাওয়া যাচ্ছে।

কমলাপুর রেলওয়ে স্টেশনের স্টেশন ম্যানেজার মাসুদ সারওয়ার বলেন, ঈদ যাত্রায় ট্রেনের অগ্রিম টিকিট সবাই পাবে না। টিকিটের চেয়ে টিকিট প্রত্যাশীর সংখ্যা অনেক বেশি। অনলাইনে টিকিট আছে ১৩ হাজার কিন্তু দেখা যায় এক সঙ্গে সাড়ে ৪ লাখ মানুষ হিট করছে টিকিটের জন্য।

অনলাইনে যাত্রীদের টিকিট না পাওয়া বিষয়ে স্টেশন ম্যানেজার বলেন, সহজ থেকে আমরা যে ব্যাখ্যাটা পেয়েছি তা হলো, সকালে ১৩ হাজার টিকিটের জন্য আজ সাড়ে চার লাখ টিকিট প্রত্যাশী সার্ভারে প্রবেশ করেন। ১৩ হাজার মানুষই কিন্তু টিকিট পাবে বাকিরা টিকিট পাবে না। অধিকাংশ লোকই যেহেতু টিকিট পাবে না অভিযোগটা তাদেরই থাকবে। আমি নিজেও সকালে চেষ্টা করে দেখেছি টিকিট কাটতে পারিনি। এক সঙ্গে এত লোক টিকিট চাইলে তো আর পাওয়া সম্ভব হয় না।

এমবুইউ