Dr. Neem on Daraz
Dr. Neem Hakim

জাতীয় স্লোগানে ‘জয় বঙ্গবন্ধু’ অন্তর্ভুক্ত করতে লিগ্যাল নোটিশ


আগামী নিউজ | ডেস্ক রিপোর্ট প্রকাশিত: জুন ২০, ২০২২, ০৪:১৫ পিএম
জাতীয় স্লোগানে ‘জয় বঙ্গবন্ধু’ অন্তর্ভুক্ত করতে লিগ্যাল নোটিশ

ঢাকাঃ ‘জয় বাংলা’কে বাংলাদেশের জাতীয় স্লোগান হিসেবে জারি করা গেজেট সংশোধন করে ‘জয় বঙ্গবন্ধু’ অন্তর্ভুক্ত করতে লিগ্যাল নোটিশ পাঠানো হয়েছে।

সোমবার (২০ জুন) সুপ্রিম কোর্টের ১১ আইনজীবীর পক্ষে মন্ত্রিপরিষদ সচিব, আইন মন্ত্রণালয়ের সচিব ও শিক্ষা মন্ত্রণালয়ের সচিব বরাবর এ নোটিশ পাঠানো হয়।

নোটিশ পাওয়ার ১০ দিনের মধ্যে ‘জয় বাংলা’কে জাতীয় স্লোগান হিসেবে ঘোষণা করে চলতি বছরের ২ মার্চ জারি করা গেজেট সংশোধন করতে অনুরোধ করা হয়েছে। অন্যথায় তারা হাইকোর্টে রিট করবেন বলে নোটিশে বলা হয়।

নোটিশ প্রেরণকারী আইনজীবীদের একজন আব্দুল্লাহ আল হারুন ভূঁইয়া জানান, ১৯৭১ সালে মহান মুক্তিযুদ্ধের সময় জয় বাংলা এবং জয় বঙ্গবন্ধু স্লোগান একইসঙ্গে উচ্চারিত হয়েছে। একই স্পিরিট নিয়ে দেশ স্বাধীন হয়েছে। দুটি আলাদা কোনো স্লোগান নয়, একই স্লোগান।  

এছাড়া ২০১৬ সালের ৩ মে সংবিধানর ষোড়শ সংশোধনী নিয়ে হাইকোর্টের দেওয়া রায়ে বিচারপতি মো.আশরাফুল কামাল বলেছিলেন, বঙ্গবন্ধু এবং বাংলাদেশ এক এবং অভিন্ন। এই দেশটি বঙ্গবন্ধুর বাংলাদেশ। তাই মহান মুক্তিযুদ্ধের সময় সমগ্র বাঙালির মুখে মুখে স্লোগান ছিল ‘এক নেতা এক দেশ বঙ্গবন্ধুর বাংলাদেশ’। জয় বাংলা , জয় বঙ্গবন্ধু স্লোগান আমাদের জাতীয় স্লোগান। 

সুপ্রিম কোর্টের আইনজীবী ড. বশির আহমেদের করা এক রিটের শুনানি নিয়ে ২০১৭ সালের ৪ ডিসেম্বর রুল জারি করেছিলেন হাইকোর্ট। রুলে ‘জয় বাংলা’কে কেন জাতীয় স্লোগান হিসেবে ঘোষণা করা হবে না তা জানতে চাওয়া হয়েছিল। 

ওই দিন বশির আহমেদ বলেছিলেন, জয় বাংলা হচ্ছে আমাদের জাতীয় প্রেরণার প্রতীক। পৃথিবীর ৬০টি দেশে জাতীয় স্লোগান আছে। কিন্তু বাংলাদেশের মানুষের দুর্ভাগ্য যে আমরা আমাদের চেতনার সেই ‘জয় বাংলা’ স্বাধীনতার এতদিন পরেও জাতীয় স্লোগান হিসেবে পাইনি। 

রুল শুনানি শেষে ২০২০ সালের ১০ মার্চ রায় দেন বিচারপতি এফআরএম নাজমুল আহাসান (প্রয়াত) ও বিচারপতি কেএম কামরুল কাদেরের হাইকোর্ট বেঞ্চ।

ওই দিন রায় ঘোষণার সময় আদালত পর্যবেক্ষণে বলেছিলেন, ‘জয় বাংলা জাতীয় ঐক্যের স্লোগান। জয় বাংলা জাতির পিতা বঙ্গবন্ধুর শেখ মুজিবুর রহমানের প্রিয় স্লোগান এবং জয় বাংলা ৭ মার্চের ভাষণের সঙ্গে সংবিধানে অন্তর্ভুক্ত রয়েছে। আবেদনকারী সংবিধানের ৩ ও ৪ নম্বর অনুচ্ছেদের ধারাবাহিকতায় জাতীয় স্লোগান হিসেবে জয় বাংলাকে অন্তর্ভুক্ত করার দাবি করেছেন, এটা এ আদালতের এখতিয়ার বহির্ভূত। কারণ কোনো আইন প্রণয়ন করা এবং সংবিধান সংশোধন করার একমাত্র অধিকার জাতীয় সংসদের।’

তবে রাষ্ট্রপক্ষ এ রুলের সমর্থনে হলফনামা দিয়েছেন উল্লেখ করে আদালত রায়ে বলেন, আইন সচিব ও মন্ত্রিপরিষদ সচিব জয় বাংলাকে জাতীয় স্লোগান করায় একমত পোষণ করেছেন। এরপর আদালত রায়ের আদেশ অংশ ঘোষণা করেন।

এমবুইউ