Dr. Neem on Daraz
Dr. Neem Hakim

বালু তোলার অনুমতি চেয়ে চেয়ারম্যান সেলিমের রিট খারিজ


আগামী নিউজ | আগামী নিউজ প্রতিবেদক প্রকাশিত: মে ২৪, ২০২২, ০৯:১০ এএম
বালু তোলার অনুমতি চেয়ে চেয়ারম্যান সেলিমের রিট খারিজ

ঢাকাঃ চাঁদপুর সদর ও হাইমচর উপজেলার পাঁচটি মৌজায় মেঘনা নদী থেকে ২৮ লাখ ৪০ হাজার কিউবিক মিটার বালু উত্তোলনের অনুমতি চেয়ে হাইকোর্টে ১০নং লক্ষ্মীপুর ইউনিয়ন পরিষদের চেয়ারম্যান মো. সেলিম খানের দায়ের করা রিট সরাসরি খারিজ হয়েছে।

একই সঙ্গে নিজ খরচে হাইড্রোগ্রাফিক জরিপ করতে বিআইডব্লিউটিএ চেয়ারম্যান ও হাইড্রোগ্রাফিক ডিভিশনের পরিচালকের প্রতি নির্দেশনা দিতে জানানো আর্জিও খারিজ করেছেন আদালত।

এ সংক্রান্ত বিষয়ে প্রাথমিক শুনানি নিয়ে সোমবার (২৩ মে) হাইকোর্টের বিচারপতি মো. মজিবুর রহমান মিয়া ও বিচারপতি খিজির হায়াতের সমন্বয়ে গঠিত বেঞ্চ রিটটি সরাসরি খারিজ করে আদেশ দেন।

এ মামলায় রাষ্ট্রপক্ষে শুনানি করেন ডেপুটি অ্যাটর্নি জেনারেল কাজী মাঈনুল হাসান। তিনি বলেন, ইউপি চেয়ারম্যান সেলিম খান আবারও চাঁদপুর সদর উপজেলা ও হাইমচরের ৫টি মৌজায় বালু উত্তোলনের অনুমতি পেতে নিজ খরচে হাইড্রোগ্রাফিক সার্ভে করার দাবিতে একটি রিট মামলা দায়ের করেন গত এপ্রিল মাসে। আদালত ২২ মে এবং ২৩ মে এর শুনানি করেন।

তিনি বলেন, বালু উত্তোলন সংক্রান্ত আইনের বিধান আমরা আদালতকে দেখিয়েছি। আরেক মামলায় সুপ্রিম কোর্টের আপিল বিভাগে যে স্থগিতাদেশ আছে সেটিও আদালতের নজরে এনেছি। সব কিছু দেখানোর পর আদালত সন্তুষ্ট হয়ে সরাসরি মামলাটি খারিজ করে দিয়েছেন।

এর আগে, ইউপি চেয়ারম্যান মো. সেলিম খানকে মেঘনার ডুবোচর থেকে বালু উত্তোলনে অনুমতি দিতে হাইকোর্ট যে রায় দিয়েছিলেন তা স্থগিত করেন আপিল বিভাগের চেম্বার আদালত। বালু তোলার অনুমতি বাতিল চেয়ে রাষ্ট্রপক্ষের আবেদনের (লিভ টু আপিল) পরিপ্রেক্ষিতে গত ৪ এপ্রিল এ আদেশ দেন চেম্বার বিচারপতি এম. ইনায়েতুর রহিম।

২০১৫ সালে নৌপথ সচল করার কথা বলে রিট করেছিলেন চাঁদপুর সদর উপজেলার ১০ নম্বর লক্ষ্মীপুর ইউনিয়ন পরিষদের চেয়ারম্যান মো. সেলিম খান। তার রিটের পরিপ্রেক্ষিতে প্রায় চার বছর আগে ২০১৮ সালের এপ্রিলে চাঁদপুর সদর ও হাইমচর উপজেলার ২১টি মৌজায় মেঘনার ডুবোচর থেকে ৩০ কোটি ৪৮ লাখ ঘনফুট বালু উত্তোলনের অনুমতি দিতে নির্দেশ দিয়েছিলেন হাইকোর্ট।

হাইড্রোগ্রাফিক জরিপের মাধ্যমে নদীর তলদেশে কোথায় কত দূরত্বে মাটি রয়েছে, তা আধুনিক পদ্ধতিতে চিহ্নিত করা বা এর মানচিত্র তৈরি করা হয়। ডুবোচর কাটতে হলে প্রথমে হাইড্রোগ্রাফিক জরিপ করতে হয়। কিন্তু নদী থেকে যত্রতত্র শত শত ড্রেজার বসিয়ে অপরিকল্পিত বালু উত্তোলনের কারণে জাতীয় সম্পদ ইলিশ ক্ষতিগ্রস্ত, মাছের খাদ্য কমে যাওয়া, নদীভাঙন প্রতিরোধ করা সম্ভব হচ্ছে না বলে সম্প্রতি জানিয়েছেন সংশ্লিষ্ট দফতরের কর্মকর্তারা। এ নিয়ে একাধিক সংবাদও প্রকাশিত হয়েছে।

উল্লেখ্য, চাঁদপুরের নদী অঞ্চল থেকে গত কয়েক বছর ধরে অপরিকল্পিতভাবে বালু উত্তোলনের অভিযোগ রয়েছে ইউপি চেয়ারম্যান সেলিম খানসহ একটি চক্রের বিরুদ্ধে। এমনকি অনুমতি ছাড়াই চেয়ারম্যান বছরের পর বছর বালু বিক্রি করেছেন বলে জানিয়েছে স্থানীয় প্রশাসন। দীর্ঘদিন বালু ব্যবসার মাধ্যমে বিপুল সম্পদের মালিক হয়েছেন তিনি। এদিকে, বালু উত্তোলনের কারণে শত শত কোটি টাকা ব্যয় করেও নদীভাঙন প্রতিরোধ করা যাচ্ছে না। সেই সঙ্গে ক্ষতিগ্রস্ত হচ্ছে ইলিশ সম্পদসহ নদীর জীববৈচিত্র্য। সরকার হারাচ্ছে কোটি কোটি টাকার রাজস্ব। নদীভাঙন ঠেকাতে বিভিন্ন সময় সংশ্লিষ্ট সরকারি দফতর ও স্থানীয়রা বিরোধিতা করলেও বালু উত্তোলন বন্ধ হচ্ছে না।

এ অবস্থায় চাঁদপুরের নদী থেকে অপরিকল্পিত বালু উত্তোলন বন্ধে বিভিন্ন পর্যায়ের মানুষজনের দাবির প্রেক্ষিতে গত ১৯ ফেব্রুয়ারি জেলা উন্নয়ন সমন্বয় সভায় বিআইডব্লিউটিএ, মৎস্য গবেষণা ইনস্টিটিউট, পানি উন্নয়ন বোর্ডের শীর্ষ কর্মকর্তাদের মতামত ও চিঠির আলোকে সরকারি সম্পদ ও ইলিশ রক্ষায় ভূমি মন্ত্রণালয়, পানিসম্পদ মন্ত্রণালয়, মৎস্য ও প্রাণিসম্পদ মন্ত্রণালয়, নদী রক্ষা কমিশনসহ সংশ্লিষ্ট দফতরে চিঠি দেন জেলা প্রশাসক অঞ্জনা খান মজলিশ।

ওই চিঠির পর সংশ্লিষ্ট বিভিন্ন শীর্ষ কর্মকর্তাদের সঙ্গে বৈঠক করে জাতীয় নদী রক্ষা কমিশন। উচ্চপর্যায়ের তদন্ত কমিটি গঠন করে ভূমি মন্ত্রণালয়ও। এরই মধ্যে অবৈধভাবে বালু উত্তোলন বন্ধ ও চেয়ারম্যান সেলিম খানকে গ্রেফতারের দাবিতে মানববন্ধন ও বিক্ষোভ করেছেন নদীপাড়ের ভাঙনকবলিত মানুষ।

এমবুইউ