Dr. Neem
Dr. Neem Hakim

একাংগি


আগামী নিউজ | ডঃ নিম হাকিম প্রকাশিত: জুলাই ১৭, ২০২১, ১২:৪৫ পিএম
একাংগি

ছবি: সংগৃহীত

পরিচিতিঃ (Botanical Name: Kaempferia galanga Linn., Common Name: Ekangi, English Name: Black Thorn, Family: Zingiberaceae)

একাংগি বা চন্দ্রমূলা বর্ষজীবী গাছ। মূল হলুদের মতো। পাতা বেশ বড়, লম্বাটে এবং মাটির চারিদিকে বিস্তৃত থাকে। ফুল সুগন্ধযুক্ত ও শ্বেতবর্ণ, আস্তে আস্তে প্রস্ফুটিত হয়। বর্ষায় ফুল হয়, ফুল ফোটা শেষ হলে নতুন পাতা গজায়। সকালে দিকে ফুল ফোটে সন্ধ্যায় দিকে শুকিয়ে যায়। এই গাছ  থেকে সুগন্ধযুক্ত তেল প্রস্তুত করা যায়। দক্ষিণ-পূর্ব এশিয়া এর আদি বাসস্থান।

প্রাপ্তিস্থানঃ দেশের ঢাকা, ময়মনসিংহ ও টাঙ্গাইল অঞ্চলে একাংগি বেশী দেখা যায়।

চাষাবাদঃ অঙ্গজ বংশবিস্তার অর্থাৎ রাইজোমের (Rhizome) মাধ্যমে চাষাবাদ করা হয়ে থাকে।

লাগানোর দূরত্বঃ এক থেকে দেড় ফুট।

উপযোগী মাটিঃ বেলে দো-আঁশ মাটিতে ভাল জন্মে।

বংবিস্তারঃ কন্দের সাহায্যে বংশ বিস্তার করে থাকে। আহরণের প্রশ্ন নেই।

ব্যবহার্য অংশঃ পাতা, কন্দ।

প্রক্রিয়াজাতকরণ/সংরক্ষণঃ একাংগি টুকরো টুকরো করে কেটে আদার মত সংরক্ষণ করা যায়।

উপকারিতা/লোকজ ব্যবহারঃ একাংগি উত্তেজক, সর্দিতে উপকারি, মাথায় খুসকি দূর করে, বাতজ্বর নাশক ও চর্মরোগে উপকারী। পাতা শ্লেষ্মানাশক হিসেবে ব্যবহৃত হয়। কিন্তু এটির স্নায়ুর অবসাদক। বীজ স্নিগ্ধকারক, মুত্রকারক ও বলকারক।

কোন অংশ কিভাবে ব্যবহৃত হয়ঃ

  • একাংগির পাতা শ্লেষ্মানাশক হিসেবে ব্যবহৃত হয়।
  • সর্দিতে একাংগি বিশেষ উপকারি।
  • একাংগি বেটে ব্যবহার করলে চর্মরোগে উপকারি।
  • সুগন্ধীর কারণে একাংগি মাছ শিকারে ব্যবহার করা হয়।

পরিপক্ক হওয়ার সময়কালঃ এক বছর।

অন্যান্য ব্যবহারঃ ফুল থেকে রং তৈরী করা হয়। কাঁচা ফল মোরগ-মুরগীর খাদ্য এবং বীজের পিটা গৃহপালিত পশু-পাখিকে খাওয়ানো হয়।

আয়ঃ প্রতি একর জমিতে বছরে ২০,০০০ থেকে ২৫,০০০ টাকা পর্যন্ত আয় করা সম্ভব।