Agaminews
Dr. Neem Hakim

ভুঁইকুমড়া


আগামী নিউজ | ডঃ নিম হাকিম প্রকাশিত: জানুয়ারি ৩, ২০২১, ০৮:১৮ পিএম
ভুঁইকুমড়া

ছবিঃ সংগৃহীত

পরিচিতিঃ (Botanical Name: Ipomoea mauritiana Jacq, Common Name: Bhuikumra, Enghlish Name: Jaint Potato, Family: Convolvulaceae)

ভুঁইকুমড়া বৃক্ষারোহী লতা জাতীয় গুল্ম। পাতা ২ থেকে ৩ ইঞ্চি লম্বা, হাতের পাঞ্জার মত ৫ থেকে ৭ ভাগে বিভক্ত থাকে। ফুল নালিকাকার কলমি ফুলের মত লম্বা এবং বেগুনী বর্ণের। ফল ছোট ছোট গোলাকার সবুজ বর্ণের। কন্দ বেশী পুরনো হলে ২০ কেজি পর্যন্ত দেখা যায়।

প্রাপ্তিস্থানঃ বাংলাদেশসহ উপমহাদেশের বিভিন্ন অঞ্চলে ভুঁইকুমড়া জন্মে।

চাষাবাদঃ সাধারণতঃ কন্দের মাধ্যমে বংশ বিস্তার করে।

লাগানোর দূরত্বঃ ১ থেকে ৩ ফুট।

উপযোগী মাটিঃ সব ধরনের মাটিতেই ভুঁইকুমড়া জন্মে।

বীজ আহরণঃ আগস্ট মাসে কন্দ সংগ্রহ করে ঠান্ডা ছায়াযুক্ত জায়গায় রেখে দিলে জানুয়ারি মাসে চারা গজায়; তখন রোপন করতে হয়।

প্রক্রিয়াজাতকরণ/সংরক্ষণঃ সাধারণতঃ কাঁচা কিংবা শুকনো অবস্থায় ভুঁইকুমড়া কন্দ ব্যবহার করা হয়।

ব্যবহার্য অংশঃ কন্দ।

উপকারিতা/লোকজ ব্যবহারঃ ভুঁইকুমড়া যৌনশক্তি বর্ধক ও বীর্য গাঢ়কারক হিসাবে বিশেষ কার্যকরী। এছাড়াও, বলকারক, রসায়ন ও বাজীকরণ। বীর্য ও স্নিগ্ধকারক এবং পুষ্টিকারক ও স্তন্যদুগ্ধ বর্ধক। মুত্রকারক,বর্ণপ্রসাদক ও জীবনী শক্তি বর্ধক। জ্বর, পিত্তজ্বর ও দাহনিবারক। প্লীহা ও লীভার রোগে উপকারী এবং বিরেচক।

কোন কোন অংশ কিভাবে ব্যবহৃত হয়ঃ

  • ভুঁইকুমড়া চূর্ণ অতিরিক্ত ঋতুস্রাব বন্ধকারক এবং স্ত্রী ও পুরুষের যৌনশক্তি বৃদ্ধিকারক।
  • ভুঁইকুমড়া,গম, বার্লি, দুধ, ঘি, চিনি, এবং মধু, দিয়ে সন্দেশ তৈরি করে খেলে দুর্বলতা কমে যায়।
  • ভুঁইকুমড়া শালপানি, গোক্ষুর, আপাং, অন্তমুল, পুনর্ণবা ও বৃহতী চূর্ণ করে ১২ আউন্স মাত্রায় দিনে ২ বার খেলে জ্বর ও কাশিতে উপকার হয়।

অন্যান্য ব্যবহারঃ ভুঁইকুমড়া পশুখাদ্য হিসেবে ব্যবহার হয়ে থাকে।

পরিপক্ক হওয়ার সময়কালঃ ১ বছর হতে ৩ বছরে পরিপক্ক হয়।

আয়ঃ প্রতি একর জমিতে চাষ করে ৬০,০০০ টাকা থেকে ৯০,০০০ টাকা আয় করা সম্ভব।

আগামীনিউজ/নাসির