Agaminews
Dr. Neem
Dr. Neem Hakim

পিউবারফোনিয়া চিকিৎসায় স্পিচ অ্যান্ড ল্যাঙ্গুয়েজ থেরাপির ভূমিকা


আগামী নিউজ | ডেস্ক রিপোর্ট প্রকাশিত: মে ৪, ২০২১, ০৪:২২ পিএম
পিউবারফোনিয়া চিকিৎসায় স্পিচ অ্যান্ড ল্যাঙ্গুয়েজ থেরাপির ভূমিকা

ফাইল ফটো

ঢাকাঃ আমাদের পারস্পারিক যোগাযোগের প্রধান মাধ্যম হচ্ছে কণ্ঠ বা কথা বলা। আমরা কণ্ঠস্বর নিয়ে খুব বেশী সচেতন নই।আমাদের দেশের বেশিরভাগ মানুষ কণ্ঠস্বরজনিত সমস্যায় ভুগছেন কিন্তু তারা কেউ এই চিকিৎসা সম্পর্কে জানেন না। এই সমস্যার ফলে অনেকে স্কুল-কলেজে, চাকুরিতে এবং ব্যক্তিগত জীবনে নানা ধরনের সমস্যার সম্মুখীন হচ্ছে।     

পিউবারফোনিয়া ভয়েস ডিসঅর্ডারের মধ্যে অন্যতম একটি লক্ষণ পিউবারফোনিয়া। পিউবারফোনিয়া এক ধরনেরকণ্ঠস্বরজনিতসমস্যা। বয়ঃসন্ধিকালের পর প্রত্যেক ছেলে এবং মেয়ের কণ্ঠস্বর পরিবর্তন হয় অর্থাৎ শিশু কণ্ঠস্বর থেকে প্রাপ্তবয়স্ক কণ্ঠস্বরে পরিবর্তন হয়। বয়সসন্ধিঃকালের সময় যখন ছেলেদের কন্ঠ মেয়েদের মত শোনায় এবং মেয়েদের কন্ঠ শিশুদের মত শোনায় এই সমস্যাকে স্পিচ অ্যান্ড ল্যাঙ্গুয়েজ থেরাপির ভাষায় ছেলেদের ক্ষেত্রে বলা হয় পিউবারফোনিয়া আরমেয়েদের ক্ষেত্রে বলা হয় জুভেনাইল ভয়েজ।


কারণ
    আবেগজনিত সমস্যা,
    নির্দিষ্ট বয়সে সেক্সুয়াল পরিবর্তনে বিলম্ব,
    মানসিক সমস্যা,
    মা-বাবার অতিরিক্ত আদর-স্নেহ।


এই সমস্যায় যেসব বিষয় সমূহ লক্ষণীয়

কন্ঠ স্বাস্থ্যের সুরক্ষায় করনীয়ঃ

    কন্ঠ স্বাস্থ্যের অপব্যবহার সনাক্তকরণ (চিৎকার, গলাখাঁকারি, উচ্চশব্দেহাসাইত্যাদি)
    চিহ্নিতঅপব্যবহারকমানো
    স্বরযন্ত্রের সহজ ব্যবহার করুন
    স্বাভাবিক স্বর ব্যবহার করা উচিত। উচ্চস্বরে গান গাওয়া পরিহার করা উচিত
    আপনার গলার শব্দের পরিসীমার সর্বনিম্ন পর্যায়ে আপনার কন্ঠ ব্যবহার করুন
    কথা বলার সময় সহজভাবে শ্বাস প্রশ্বাস নিন
    যতটা সম্ভব কন্ঠস্বরের চাহিদা কমান। যেমনঃ কম কথা বলুন/ কম গান করুন
    কথা বলার সময় দাঁত আলাদা রেখে ঠোঁট হালকা খোলা রাখুন
    কোলাহলপূর্ণ স্থানে কথা বলা পরিহার করুন। যেমনঃ উড়জাহাজ, গাড়ি, জলযান ইত্যাদি

    ধূমপান এবং এলকোহল এর অতিরিক্ত ব্যবহার এড়িয়ে চলুন
    অস্বাভাবিক শব্দ ব্যবহার থেকে বিরত থাকুন। যেমনঃ গলা দিয়ে ইঞ্জিনের শব্দ, কৌতুকপূর্ণ শব্দ ইত্যাদি
    যতটা সম্ভব আপনার মুখ ও গলা আদ্র রাখুন।


চিকিৎসা
    ভয়েস থেরাপি
•    ল্যারেঞ্জিয়াল ম্যানিপুলেশন
•    সার্জারী

উপরোক্ত কণ্ঠস্বরজনিত সমস্যা শতভাগ ভালো করা সম্ভব। এই সমস্যার একমাত্র চিকিৎসা হলো স্পিচ অ্যান্ড ল্যাঙ্গুয়েজ থেরাপি। একজন স্পিচ অ্যান্ড ল্যাঙ্গুয়েজ থেরাপিস্ট কণ্ঠস্বরের বিভিন্ন ব্যায়াম, গলায় ম্যাসাজ, রিলাকজেশন এবং কাউন্সিলিংয়ের মাধ্যমে চিকিৎসা দিয়ে থাকেন।

তাই যাদের এ ধরনের সমস্যা আছে তাদেরঅবশ্যই একজন দক্ষ স্পিচ অ্যান্ড ল্যাঙ্গুয়েজ থেরাপিস্টের কাছে বিজ্ঞানসম্মত উপায়ে কণ্ঠস্বরের সমস্যাজনিত রোগ নির্ণয় এবং চিকিৎসা করা উচিত।

 

লেখক

মোঃ হাসিবুল হাসান
ক্লিনিক্যাল স্পিচ অ্যান্ড ল্যাঙ্গুয়েজ থেরাপিস্ট
ঢাকা, বাংলাদেশ

আগামীনিউজ/এএস