Dr. Neem
Dr. Neem Hakim

‘শিক্ষক ও শিক্ষার্থীদের মধ্যে সু-সম্পর্কই পারে সাত কলেজের ফেল কমিয়ে আনতে’


আগামী নিউজ | সরকারি বাঙলা কলেজ (ঢাকা) প্রতিনিধি প্রকাশিত: নভেম্বর ২৯, ২০২১, ১০:২৭ পিএম
‘শিক্ষক ও শিক্ষার্থীদের মধ্যে সু-সম্পর্কই পারে সাত কলেজের ফেল কমিয়ে আনতে’

ছবিঃ আগামী নিউজ

ঢাকা বিশ্ববিদ্যালয় অধিভুক্ত রাজধানীর সাত কলেজে শিক্ষার্থীদের সেশনজট ও ফেল প্রসঙ্গে মাসা বিশ্ববিদ্যালয়ের ভিপি বশির ইবনে জাফর বলেন, আন্তর্জাতিক নিয়ম মেনে মাসা বিশ্ববিদ্যালয়ে শিক্ষক অনুপাতে শিক্ষার্থী ভর্তি করানো হয়ে থাকে। এখানে যদি কোন শিক্ষার্থী ফেইল বা কম মার্ক পেয়ে থাকেন তাহলে ওই শিক্ষার্থীর সাথে দ্রুত যোগাযোগ করেন শিক্ষক। 

তিনি বলেন, কী কারণে ওই শিক্ষার্থীর ফল এমন হয়েছে তা জেনে আলাদাভাবে টেক কেয়ার করেন ও আলাদা ক্লাস করিয়ে থাকেন শিক্ষকরা। এছাড়াও কোন শিক্ষার্থীর যদি আর্থিক সমস্যা থাকে সেগুলো সমস্যা সমাধানে এগিয়ে আসেন। শিক্ষক ও শিক্ষার্থীর মধ্যে বন্ধুত্বপূর্ণ সম্পর্ক। আর এ কারণেই শিক্ষার্থীরা পড়াশোনায় এগিয়ে যাচ্ছে। শিক্ষক ও শিক্ষার্থীদের মধ্যে সু-সম্পর্কই পারে সাত কলেজের ফেল কমিয়ে আনতে ও ভালো ফলাফল বয়ে আনতে। 

রবিবার (২৮ নভেম্বর) সাত কলেজ ফেসবুক পেজে 'দেশ ও বি‌দে‌শের শিক্ষাব্যবস্থা নি‌য়ে ভাবনা' অনুষ্ঠানে অনলাইনে যুক্ত হয়ে তিনি এ কথা বলেন। এসময় এ অনুষ্ঠানে যুক্ত হয়েছিলেন মানবজমিন পত্রিকার সাংবাদিক এবি আরিফ। পুরো অনুষ্ঠানটির সঞ্চলনা করেছেন মমিনুল হক খান। 

ঢাকা বিশ্ববিদ্যালয়সহ বেশ কয়েকটি বিশ্ববিদ্যালয়ের ভর্তি পরীক্ষায় মাদ্রাসার শিক্ষার্থীরা জায়গা করে নিয়েছেন। অনেকেই এটি নেতিবাচক হিসেবে দেখছেন এমন প্রশ্নের জবাবে মাসা বিশ্ববিদ্যালয়ের ভিপি বলেন, ছাড় দেওয়ার মানসিকতা দরকার সবার মধ্যে। বিশ্ববিদ্যালয় শিক্ষার জায়গা এখানে সকল ধর্মের ও মতের মানুষ আসবে। তাদেরকে ছাড় দেওয়ার মানসিকতাও থাকতে হবে আমাদের। আমাদের সমাজে ও সংস্কৃতির সাথে তারা খাপ খাইয়ে চলতে পারে তাহলে আমাদের সমস্যা কোথায় মানতে? বিশ্ববিদ্যালয় চর্চার জায়গা এখানে সম্প্রতির চর্চার রাখতে হবে। আর এতেই ইতিবাচক দৃষ্টিভঙ্গি সারা দেশে ছড়িয়ে পড়বে বলেও জানান তিনি। 

বিশ্ববিদ্যালয়ে সবাইকে নেতিবাচক চর্চা থেকে বেড়িয়ে আসার আহ্বান জানিয়ে তিনি বলেন, বিশ্ববিদ্যালয় প্রতিষ্ঠিত হয়েছিল সবার জন্য। প্রতিষ্ঠিত হওয়ার সময় বলা ছিল না এখানে দাড়ি-টুপিওয়ালারা পড়তে পারবে না। সবাইকে নিয়ে ক্যাম্পাস চলবে। এখানে সকল ধরণের চর্চা থাকবে ও সম্প্রতির বাংলাদেশ গড়ে উঠবে।

আগামীনিউজ/এসআই