Dr. Neem
Dr. Neem Hakim

গীতিকার ও বরেণ্য সংগীত শিল্পী প্রয়াত বারী সিদ্দিকী’র আজ মৃত্যুবার্ষিকী


আগামী নিউজ | নেত্রকোণা প্রতিনিধি প্রকাশিত: নভেম্বর ২৩, ২০২১, ০১:২৮ পিএম
গীতিকার ও বরেণ্য সংগীত শিল্পী প্রয়াত বারী সিদ্দিকী’র আজ মৃত্যুবার্ষিকী

ফাইল ছবি

নেত্রকোণাঃ উপমহাদেশের প্রখ্যাত বংশীবাদক তথা বাঁশীর যাদুকর ও ফোক গানের ক্ল্যাসিক্যাল সঙ্গীতজ্ঞ, গীতিকার, সুরকার বরেণ্য সংগীত শিল্পী প্রয়াত শ্রদ্ধেয় বারী সিদ্দিকী কে মরোত্তর রাষ্ট্রীয় সর্বোচ্চ পদক প্রদান সহ তাঁর জন্ম এবং মৃত্যুবার্ষিকী সরকারি আয়োজনে উদ্যাপনের দাবি জেলা বাসীর সেই সঙ্গে বাউল বারী সিদ্দিকী ইন্স্ট্রিটিউট নির্মাণের। উল্লেখ্য গুণী এই শিল্পীর জন্ম-মৃত্যু একই মাসে হওয়ায় সপ্তাহ ব্যাপী বাউল মেলার আয়োজনও করার দাবি এলাকাবাসীর।

বারী সিদ্দিকী (১৯৫৪ খ্রিঃ ১৫ ই নভেম্বর জন্মগ্রহণ ২০১৭ খ্রিঃ ২৪ শে নভেম্বর দেহত্যাগ করেন) তবে সার্টিফিকেট অনুযায়ী তাঁর জন্ম সন ১৯৬২ খ্রিঃ, বারী সিদ্দিকী নেত্রকোণা সদর উপজেলার মৌগাতী ইউনিয়নের ফচিকা গ্রামের এক সংগীত অনুরাগী পরিবারে জন্মগ্রহণ করেন, তাঁর মা ছিলেন গ্রামীণ গীত গানের স্বনামধন্য গায়ক, ১২ বছর বয়সে নেত্রকোণার শিল্পী ওস্তাদ গোপাল দত্তের কাছে সংগীত তালিম নেন। বারী সিদ্দিকী’র সহধর্মিনী থানপুরা বাদক, একমাত্র মেয়ে কন্ঠশিল্পী এলমা সিদ্দিকী বাউল, ইংলিশ ও হিন্দি গানে পারদর্শী, বড় ছেলে সাব্বির সিদ্দিকী চলচ্চিত্র অভিনেতা, ছোট ছেলে বিলাস সিদ্দিকী কন্ঠশিল্পী ও গীটার বাদক। শ্রদ্ধেয় সংগীত শিল্পী প্রয়াত বারী সিদ্দিকী - এঁর বড় ভাই বীরমুক্তিযোদ্ধা প্রয়াত আবুল হাসেম ছিলেন বিশিষ্ট্য যাত্রা অভিনেতা। (বারী সিদ্দিকী) তিনি ওস্তাদ আমিনূর রহমান, দবির খাঁ, পান্নালাল ঘোষ সহ অসংখ্য গুণী শিল্পীর সান্নিধ্য লাভ করেন, পরে ক্লাসিক্যাল মিউজিক নিয়ে পড়াশোনা করেন, এশিয়া মহাদেশের বিখ্যাত বংশীবাদক হয়েও উচ্চাঙ্গসংগীতেও প্রশিক্ষণ নেন। নব্বইয়ের দশকে ভারতে পূনেতে ভিজি কার্ণাডের কাছে তালিম নেন বাঁশীর যাদুকর বারী সিদ্দিকী। দেশে ফিরে লোকগীতি সঙ্গে ক্লাসিক মিউজিকের সম্মিলনে গান গাওয়া শুরু করেন। তিনি (বারী সিদ্দিকী) গ্রামীণ লোকসংগীত ও আধ্যাতিœক অর্থাৎ ভাবধারার গান গেয়েছেন। তাঁর গাওয়া বিখ্যাত গানের মধ্যে রয়েছে - চোয়া চান পাখি আমি ডাকিতাছি তুমি ঘুমায়ছ নাকি, আমার মনে যত কষ্ঠ সয়, চন্দ্র সূর্য যত বড় আমার দুঃখ তত বড়, পূবালী বাতাসে চায়া থাকি আমার নাকি কেও আসে, রজনী হইস না অবসান আজ নিশী রাইতে আসবে আমার বন্ধু কালাচন, আমি নষ্ঠ মানুষ তবুও কেন এতো ভালোবাসা (শিল্পীর সহধর্মিনীকে নিয়ে গাওয়া গান), কেহ গরীব টাকার লাইগিয়্যা কেহ গরীব রূপের লাইগিয়্যা আমি গরীব ভালোবাসর লাইগিয়্যা এই দুনিয়ার সবাই গরীব কান্দে কান্দে চুপে চুপে, মওলা আমার বাড়ী নিয়া নেরে মওলা আমার গাড়ী নিয়া নেরে মওলা আমার সব নিয়া নেরে, আমার ভালোবাসার মানুষ দিয়া দেয় রে, আমি একটা জিন্দালাশ কাটিছ নারে জংলার বাঁশ আমার সাড়ে তিন হাত কবর লাইগিয়া আমার আছে বাঁশেরও বাঁশী, তুমি আইয়্য-আইয়্য পরাণের বন্ধু আমার বাউল বাড়ীতে (এই গানটি শ্রদ্ধেয় শিল্পী তাঁর একমাত্র মেয়ে কন্ঠশিল্পী এলমা সিদ্দিকীর জন্য লিখে ছিলেন) বরেণ্য সংগীত শিল্পী, বাউল সাধক ও উপমহাদেশের প্রখ্যাত বাঁশীর যাদুকর হিসেবে খ্যাত বংশীবাদক প্রয়াত বারী সিদ্দিকী- এঁর নিজ হাতে গড়া নেত্রকোণার সদর উপজেলার রৌহা ইউনিয়নের কারলী গ্রামে বাউল বাড়ীতে তাঁর মাজার প্রাঙ্গণে নানান কর্র্মসূচী নিয়ে জন্ম ও মৃত্যু বার্ষিকী স্মরণ করেন তার পরিবার, ভক্তরা ও বিভিন্ন সাংস্কৃতিক সংগঠন।

গুণী এই শিল্পী স্থানীয় মহাদেবপুর উচ্চ বিদ্যালয়ে ৭ম শ্রেণি পর্যন্ত পড়া-লেখা শেষে ৮ম শ্রেণিতে জেলা শহরের ঐতিহ্যবাহী শিক্ষা প্রতিষ্ঠান আঞ্জুমান আদর্শ সরকারি উচ্চ বিদ্যালয়ে ভর্তি হয়ে ইংরেজী বিষয়ে ১শত মার্ক পেয়ে এসএসসি পাস করেন তারপর নেত্রকোণা সরকারি কলেজ হতে বিএ পাস করেন এবং দেশের সর্বোচ্চ বিদ্যাপিট ঢাকা বিশ্ববিদ্যালয় হতে ইসলামের ইতিহাসে এমএ পাস করেন।

গুণী এই শিল্পী প্রবাস প্রজন্ম জাপান অ্যওর্য়াড, কাল্চারাল নাইট সিডনি টাওয়ার বাংলাদেশ এসোসিয়েশন অব এনএসডব্লউ মিউজিয়ান অ্যওয়ার্ড, বেলারুস হিন্দু ইউনিভার্সিটি মিউজিশিয়ান অ্যওয়ার্ড, মহাত্নাগান্ধী অ্যওয়ার্ড ভারত, জেনেভা ওয়ার্ল্ড ট্রুথ মিউজিশিয়ান কনফারেন্স অ্যাওয়ার্ড, মালয়েশিয়া কুয়ালামপুরে ক্ল্যাসিকেল মিউজিক মেস্ট্রুস অ্যওর্য়াড (ভারত-বাংলাদেশ যৌথ চেম্বার কর্মাস ইন্ড্রাস্ট্রি), সংবর্ত-এঁর একক বংশীবাদন পদক, বিশ্ব সাহিত্য কেন্দ্র অ্যওর্য়াড বাংলাদেশ, জাতীয় প্রেসক্লাব পদক, ওয়ার্ল্ড ইউনির্ভাসিটি বাংলাদেশ অ্যওয়ার্ড, ফোক গান ফ্যাষ্টিভাল বাংলাদেশ সেরা অ্যওর্য়াড, মাদার ফাউন্ডেশন পদক-মানিকগঞ্জ, চাঁদপুর ছায়াপথ সাংস্কৃতিক সংগঠনের বর্ষাকালীন সাংস্কৃতিক অনুষ্ঠান পদক, ভাটই মাধ্যমিক বিদ্যালয় সাংস্কৃতিক পদক-ঝিনাইদহ, বাঙলা ঢোল প্যাজেন্ট পদক, বরগুনা মণি সংগীত বিদ্যালয়ের সংগীত সাধক গুরু গোপী মোহন কর্মকার পদক, একুশে পদক প্রাপ্ত সাংবাদিক ও বরেণ্য সাহিত্যিক খালেকদাদ চৌধুরী সাহিত্য পদক নেত্রকোণা সহ দেশে-বিদেশে অসংখ্য পদকে ভূষিত হয়েছেন। এছাড়াও সিঙ্গাপুরে মাসব্যাপী বাঁশীর সুরের ওপর গবেষণা-প্রশিক্ষণ-প্রতিযোগিতা শেষে সেরা অ্যওর্য়াড পেয়েছিলেন।          
 
নবনাট্য সংঘ বাংলাদেশ নেত্রকোণা জেলা শাখার সভাপতি সালাহ্উদ্দিন রুবেল বলেন, শ্রদ্ধেয় প্রয়াত বারী সিদ্দিকী বাংলাদেশ ছাত্রলীগ মনোনীত প্যানেলে নেত্রকোণা সরকারি কলেজ ছাত্রসংসদের নাট্য সম্পাদক পদে বিপুল ভোটে নির্বাচিত হয়েছিলেন, শিল্পীর মনের ইচ্ছা ছিল তাঁর নিজ হাতে গড়া বাউল বাড়িতে তৈরী হবে বাউল ইনষ্টিটিউট, যেখানে বাউল গানের চর্চা হবে এবং তৈরী হবে বাউল শিল্পী পাশাপাশি বাঁশীর সুরের গবেষণা হবে। কিন্তু তাঁর অকাল প্রয়াণে সকল কিছুই ধোঁয়াশা। বিশেষ করে সরকারের নিকট জোড়-দাবি রাষ্ট্রিয় পদক যেন তাঁকে মরোত্তর প্রদান করা হয়।

স্থানীয় হিমু পাঠক আড্ডা সংগঠনের প্রতিষ্ঠাতা সাংবাদিক আলপনা বেগম জানান- কথাশিল্পী, নাট্যকার, চলচ্চিত্র নির্মাতা, লেখক হুমায়ূন আহমেদ স্যারের জন্ম-মৃত্যু বার্ষিকী পালনের পাশাপাশি শ্রদ্ধেয় বারী সিদ্দিকী’র জন্ম-মৃত্যু বার্ষিকী পালন করে আসছে নেত্রকোণার হিমু পাঠক আড্ডা, উল্লেখ্য- বারী সিদ্দিকী’র মৃত্যুর পর থেকেই তা পালন করে আসছে হিমু পাঠক আড্ডা। এই ধারবাহিকতা বজায় রাখার জন্য অন্যান্য সংগঠনকেও আহ্বান জানাচ্ছি।

প্রয়াত বারী সিদ্দিকী’র স্ত্রী পারভিন সিদ্দিকী জানান, স্বামীর মৃত্যুর পর তাঁর স্বপ্ন আর বাস্তবায়ন হলো না। মৃত্যুর পর অনেকেই অনেক কিছু করার প্রতিশ্রুতি দিয়েছিলেন সরকারী বেসরকারী সহযোগীতার কিন্তু কিছুই আর বাস্তবায়িত হয়নি। তাই সরকারের কাছে আবেদন যে, প্রয়াত এই শিল্পীর মনের যে স্বপ্ন ছিল এই বাউল বাড়ীকে ঘিরে তা বাস্তবায়ন করার।

শ্রদ্ধেয় বারী সিদ্দীকীর পরিবারের সদস্য জেলা যুবলীগের সাবেক আহ্বায়ক ও জেলা আওয়ামীলীগের সদস্য অধ্যাপক ওমর ফারুক বলেন, বাউল সাধক বারী সিদ্দিকীর ঢাকা বিশ্ববিদ্যালয়ে পড়–য়া একজন গুনী শিল্পীর দিবসগুলো প্রশাসন থেকে উদ্যোগ নিয়ে পালন করা দরকার ছিলো। তাহলে নতুন প্রজন্ম জানতে পারবে সংস্কৃতি সম্পর্কে।

নেত্রকোণা জেলা শিল্পকলা একাডেমির কালচারাল অফিসার অমল বোস জানান- উর্ধ্বতন কর্তৃপক্ষের সঙ্গে আলোচনা করে, চেষ্টা করবো গুণী শিল্পী শ্রদ্ধেয় বারী সিদ্দিকী’র জন্ম ও মৃত্যুবার্ষিকী জেলা প্রশাসন থেকে পালন করার। তিনিই একমাত্র শিল্পী যে ফোক গান কে ক্ল্যাসিক্যাল গানে রূপান্তির করেছেন। তিনি বেঁচে থাকলে আমরা আরও অনেক কিছু শিখতে পারতাম। তবুও যা রেখে গেছেন তা দিয়েই গবেষণা করলে অনেক অনেক শিখা যাবে।

আজ ২৪শে নভেম্বর জেলা প্রশাসনের উদ্দ্যেগে সন্ধ্যা ৭টায় জেলা শিল্পকলা একাডেমীর হল রুমে শ্রদ্ধেয় বারী সিদ্দিকীর মৃত্যুবার্ষিকী উপলক্ষ্যে স্মরণসভা ও মনোজ্ঞ সাংস্কৃতিক অনুষ্ঠানের আয়োজন করা হয়েছে, সেই সঙ্গে বাঁশীর যাদুকর ও বংশীবাদক বরেণ্য সংগীত শিল্পী  বারী সিদ্দিকী’র নিজ হাতে গড়া নেত্রকোণা সদর উপজেলার রৌহা ইউনিয়নের কারলী গ্রামে “বাউল বাড়ীতে” পারিবারিক হতে কোরআনখানি-মিলাদ মাহফিলের আয়োজন করা হয় এবং ২৫শে নভেম্বর স্থানীয় এলাকাবাসীর উদ্যোগে বিকেল হতে রাত অবদী সাংস্কৃতিক অনুষ্ঠান ও বাউল গানের আয়োজন করা হয়েছে। এই সাংস্কৃতিক অনুষ্ঠানের আহ্বায়ক হিসেবে রয়েছেন নূর মোমেন, সদস্য সচিব স্থানীয়  সাবেক মেম্বার মোখলেছুর রহমান, অন্যতম সদস্য নবাগত মেম্বার মোতালিব হোসেন সহ ৭৭ জন।

আগামীনিউজ/নাসির