Dr. Neem
Dr. Neem Hakim

ভারতের পেট্রাপোল চেকপোস্টে স্পট করোনা পরীক্ষায় দুর্ভোগে যাত্রীরা


আগামী নিউজ | বেনাপোল প্রতিনিধি :  প্রকাশিত: ডিসেম্বর ১, ২০২১, ০৯:০১ পিএম
ভারতের পেট্রাপোল চেকপোস্টে স্পট করোনা পরীক্ষায় দুর্ভোগে যাত্রীরা

ছবিঃ আগামী নিউজ

যশোরঃ বেনাপোলের বিপরীতে ভারতের পেট্রাপোল চেকপোস্টে পূর্ব ঘোষনা ছাড়াই হঠাৎ করে ভারতে যাওয়ার বাংলাদেশি পাসপোর্টযাত্রীদের স্পট করোনা পরীক্ষা করায় দূর্ভোগে পড়ছেন যাত্রীরা।

বুধবার (০১ ডিসেম্বর) সকাল থেকে এ কার্যক্রম শুরু করেছে ভারতের পেট্রাপোল ইমিগ্রেশন কর্তৃপক্ষ।

জানা যায়, বুধবার সকাল থেকে ভারতীয় ইমিগ্রেশন পুলিশ ধাপে ধাপে বাংলাদেশি ৫০ জন করে ভারতে গমনকারী পাসপোর্টধারী যাত্রীর স্পট করোনা পরীক্ষা করার জন্য নমুনা সংগ্রহ করছে। যাদের নমুনা নেওয়া হয়েছে তাদের মধ্যে যদি কারো শরীরে করোনার উপস্থিতি না থাকে তাহলে আর কারো স্পট করোনার পরীক্ষা করা হবে না। তবে উক্ত ৫০ জনের মধ্যে কারো শরীরে করোনার রিপোর্টে পজেটিভ আসে তাহলে বাংলাদেশ থেকে ভারতে যাওয়া প্রত্যেক যাত্রীকে পরীক্ষা করা হবে। ৫০ জনের করোনা রিপোর্ট আসার পর আবার ৫০ জনের নমুনা নেওয়া হচ্ছে। নমুনা রিপোর্ট না আসা পর্যন্ত পাসপোর্টযাত্রীদের ছাড়পত্র দেওয়া হচ্ছে না। বসে থাকতে হচ্ছে ঘন্টার পর ঘন্টা। বাংলাদেশি যাত্রীরা এদেশ থেকে করোনা নেগেটিভ ও ডবল ডোজের টিকার সার্টিফিকেট নিয়ে ভারতে যাওয়ার অনুমতি পেলেও ভারত নতুন করে স্পট করোনা টেস্টে যাত্রীদের নানা সমস্যায় ফেলেছে।

ওপারের একজন ব্যবসায়ী জানান, করোনা ভাইরাসের নতুন ধরন ‘ওমিক্রন’ নিয়ে বিশ্বব্যাপী তোলপাড় হওয়ায় ভারতীয় ইমিগ্রেশন কর্তৃপক্ষ এ ব্যবস্থা নিয়েছে বলে আমার মনে হয়। 

ভারত ফেরত বাংলাদেশি পাসপোর্ট যাত্রী গোপাল চন্দ্র বলেন, আমি এক সপ্তাহ আগে ভারতে যাই। বুধবার দেশে ফেরার সময় দেখতে পেলাম বাংলাদেশ থেকে যাওয়া প্রায় ৫০-৬০ জন যাত্রীকে করোনা পরীক্ষার জন্য তাদের বসিয়ে রেখেছে। এতে করে যাত্রীদের দীর্ঘ লাইন পড়ে গেছে। 

বেনাপোল চেকপোস্ট ইমিগ্রেশন পুলিশের ভারপ্রাপ্ত কর্মকর্তা মোহাম্মদ রাজু আহম্মেদের কাছে এ বিষয়ে জানতে চাইলে তিনি বলেন, শুনছি পেট্রাপোল ইমিগ্রেশন পুলিশ স্পট করোনা পরীক্ষা করছে। এর বেশি কিছু জানা নেই। 

উল্লেখ্য দক্ষিণ আফ্রিকায় করোনা ভাইরাসের নতুন এ ‘ওমিক্রন’ ধরনটি প্রথম শনাক্ত হয়। সরকারের নির্দেশনা অনুসারে ‘ঝুঁকিপূর্ণ’ দেশের তালিকায় রয়েছে। বাংলাদেশ, যুক্তরাজ্য, গোটা ইউরোপ এবং আরও ১১টি দেশ বা অঞ্চল, সেগুলো হলো, দক্ষিণ আফ্রিকা, ব্রাজিল, বতসোয়ানা, চীন, মরিশাস, নিউজিল্যান্ড, জিম্বাবুয়ে, সিঙ্গাপুর, হংকং ও ইসরায়েল। এ সমস্ত দেশ থেকে যে সব যাত্রীরা বেনাপোল বন্দর দিয়ে বাংলাদেশে আসবে তাদেরকে ১৪ দিনের প্রাতিষ্ঠানিক কোয়ারেন্টাইনে রাখা বাধ্যতামূলক করা হয়েছে। পরে বাংলাদেশকে তালিকা থেকে বাদ রাখে ভারত।

আগামীনিউজ/এসআই