Agaminews
Dr. Neem
Dr. Neem Hakim

সাতক্ষীরায় নামমাত্র মূল্যে পিডিবির দুটি ভবন বিক্রি


আগামী নিউজ | আজমল হোসেন জুয়েল, সাতক্ষীরা জেলা প্রতিনিধি প্রকাশিত: ফেব্রুয়ারি ২৮, ২০২১, ০৬:৫৭ পিএম
সাতক্ষীরায় নামমাত্র মূল্যে পিডিবির দুটি ভবন বিক্রি

আগামী নিউজ

সাতক্ষীরাঃ ওয়েষ্ট জোন পাওয়ার ডিষ্ট্রিবিউশন কোঃ লিঃ (ওজোপাডিকো) পরিত্যক্ত ভবন নিলামে ব্যাপক অনিয়মের অভিযোগ উঠেছে। ৪তলা বিশিষ্ট ষ্টাফ কোয়ার্টার ও ১তলা বিশিষ্ট নিরাপত্তা প্রহরীদের কোয়ার্টার ১০-১২ লক্ষাধিক টাকার ভবন দুটি সরকারি মূল ধরা হয়েছে নাম মাত্র। তবে তা বিক্রি হয়েছে মাত্র ৩লক্ষ ১৫ হাজার টাকায়।

জানাগেছে, চলতি ইংরেজী বছরের গত মাসের ১৮ তারিখে সাতক্ষীরা বিদ্যুৎ সরবারহ, ওজোপডিকোলিঃ দপ্তর ক্যাম্পাসের অভ্যন্তরে ব্যবহার অনুপযোগী ৪র্থ তলা বিশিষ্ট ষ্টাফ কোয়ার্টার ও নিরাপত্তা প্রহরীদের কোয়ার্টার অপসারনে পরিত্যক্ত ভবনের প্রকাশ্য নিলাম দরপত্র আহ্বান করেন।

সাতক্ষীরা বিদ্যুৎ সরবারহ বিভাগের দায়িত্বশীল ব্যাক্তিদের কাছে পরিত্যক্ত ভবন নিলামের তথ্য সংগ্রহ করতে গেলে তারা জানান, পরিত্যক্ত ভবন নিলামের সমুদয় কাগজপত্রাদি পিডিবি’র যশোর বিভাগীয় তত্বাবধায়কের কার্যালয়ে পাঠানো হয়েছে এখন কোন তথ্য দেওয়া সম্ভব না ।

নাম প্রকাশে অনিচ্ছুক সাতক্ষীরা পিডিবি অফিসের একজন কর্মকর্তা জানান, পিডিবি অফিসের পরিত্যক্ত ভবন বিক্রয় নির্ধারিত মূল্য ধরা হয়েছে নাম মাত্র। নির্বাহী প্রকৌশলীর দপ্তরের বেধে দেওয়া সরকারি মূল্য দেখে অনেকেই দেশকে শায়েস্তা খাঁর আমল বলে উপহাস করেছেন। সরকারি মূল্যের এক টাকা বেশি দর হলেই বিক্রিতে বাঁধা থাকে প্রকাশ্য নিলাম কমিটির। ফলে আলোচনা করে একটি চক্র এসব ভবন নামমাত্র মূল্যে সরকারের কাছ থেকে কিনে নেয় ফলে অনেক বড় অংকের রাজস্ব থেকে বঞ্চিত হচ্ছে সরকার। ভবন দুটি নিলামে বিক্রি হয়েছে নির্বাহী প্রকৌশলীর দামে। 

এর আগে পিডিবি একটি ৩তলা বিশিষ্ট ভবন ৫লক্ষ টাকায় বিক্রয় করা হয়েছিল। কিন্তু এবার ৪তলা বিশিষ্ট ও ১তলা বিশিষ্ঠ ১০কক্ষের দুটি ভবন কম মূল্যে কেনার জন্য বিদ্যুৎ সরবারহ বিভাগের নির্বাহী প্রকৌশলীর সাথে আগে থেকেই আলোচনা করে নিয়েছে ৫-৬ জনের চক্রটি। চক্রটি প্রকাশ্য নিলামের সিন্ডিকেট তৈরি করে হাতিয়ে নিচ্ছেন লাখ লাখ টাকা । রাজস্ব বঞ্চিত হচ্ছে সরকার ।  

নাম প্রকাশে অনিচ্ছুক পিডিবি অফিস সংলগ্ন একজন ব্যবসায়ী জানান, সরকারি পণ্য কেনার সময় যেমন দাম ছয়/সাত গুণ বাড়ানো হয়। একই ভাবে বিক্রির সময়ও ছয়/সাত গুণ কমানো হয়। সরকারি কিছু অসাধু কর্মকর্তা নিজেদের পকেট ভরাতে গোপনে নিলাম দেন এবং নেগোসিয়েট চক্রগুলোকে লালন করেন।

এজন্যই সরকার রাজস্ব হারাচ্ছে। বিক্রিত মূল্য দেখে মনে হচ্ছে-দেশের বাজারে শায়েস্তা খাঁ আমল চলছে।  

এবিষয়ে পিডিবি অফিসের হিসাবরক্ষক খোরশেদ আলম আগামী নিউজকে জানান, গনপূর্ত বিভাগের প্রকৌশলীর মাধ্যমে পরিত্যক্ত ভবনের নিলাম মূল্য নির্ধারন করা হয়েছে। ৮টি টেন্ডার ড্রপ হয়েছিল সাতক্ষীরার বাটকেখালী এলাকার ইউনূস আলী চাকলাদার নামে এক ব্যাক্তি নিলামের সর্বোচ্চ মূল্য বলেন । তবে সেটা কত এই মুহুর্তে বলতে পারছিনা । সমস্ত কাগজ-পত্র যশোর অফিসে পাঠানো হয়েছে।   

এব্যাপারে গনপূর্ত অধিদপ্তরের ভারপ্রাপ্ত নির্বাহী প্রকৌশলীর দপ্তরে গিয়ে ও তার ব্যবহ্নত (০১৮৮২-১১৫৩৬৪) মোবাইল নম্বরে যোগাযোগ করে তাকে পাওয়া যায়নি।

এ ব্যাপারে নিলাম কমিটির সদস্য সচিব পিডিবি’র নির্বাহী প্রকৌশলী জিয়াউল হক বলেন, বিষয়টি ম্যানেজমেন্ট দেখবেন। টেন্ডার কমিটির আহ্বায়ক আছেন তিনি যদি মনে করেন এটি যৌক্তিক দাম না তাহলে টেন্ডার কমিটি সেটা বাতিল করবে।

আগামীনিউজ/এএস