Agaminews
Bangla Noboborsho
Dr. Neem Hakim

কাল থেকে লকডাউন: ক্ষুদ্র ব্যবসায়ীদের মাথায় হাত


আগামী নিউজ | ডেস্ক রিপোর্ট প্রকাশিত: এপ্রিল ৪, ২০২১, ১১:৫৩ এএম
কাল থেকে লকডাউন:  ক্ষুদ্র ব্যবসায়ীদের মাথায় হাত

ছবি: আগামী নিউজ

ঢাকাঃ করোনা সংক্রমণ বৃদ্ধির পরিপ্রেক্ষিতে লকডাউন ঘোষণা করায় ব্যবসায়ীরা নতুন করে অনিশ্চয়তার মুখে পড়েছেন।

সাধারণ ব্যবসায়ীরা বলেন, জনস্বাস্থ্যের কল্যাণে এবং ভাইরাস সংক্রমণ ঠেকাতে সরকার যে সিদ্ধান্ত নিয়েছে আমরা সেটাকে অবশ্যই স্বাগত জানাই। তবে লকডাউনের খবরে স্বাভাবিকভাবেই দুশ্চিন্তায় রয়েছে আমাদের মত সাধারণ খুদ্র ব্যবসায়ীরা। কারণ মার্কেট-দোকানপাট বন্ধ থাকলে পুরোপুরি আয়শূন্য হয়ে পড়বে।

লকডাউনের মেয়াদ নিয়েও ব্যবসায়ীদের মাঝে শঙ্কা বিরাজ করছে,  অনেক ব্যবসায়ীই ভয় পাচ্ছেন, যদি আগের বারের মতো লকডাউন বেশিদিন স্থায়ী হয়, তখন কী হবে? লকডাউন দীর্ঘসময় ধরে চললে তো সাধারণ খুদ্র ব্যবসায়ীরা পথে বসে যাবেন।

গত বছর করোনা পরিস্থিতিতে ব্যবসাবাণিজ্য বন্ধ থাকায় অর্ধ কোটিরও বেশি ক্ষুদ্র ব্যবসায়ী বেকার হয়েছেন বলে উল্লেখ করেছেন বাংলাদেশ দোকান মালিক সমিতির সভাপতি হেলাল উদ্দিন। তিনি আগাম নিউজকে বলেন, সাধারণ ছুটি শেষে অনু ব্যবসায়ীরা ব্যবসায় ফিরতে শুরু করেছেন। তা ছাড়া মাঝারি ও ক্ষুদ্র ব্যবসায়ীরা গত বছরের করোনার ক্ষতি এখনো কাটিয়ে উঠতে পারেননি। এর মধ্যে নতুন করে লকডাউনের ঘোষণায় আতঙ্কে রয়েছেন তারা। কারণ বিগত লকডাউনে সবাই পুঁজি ভেঙে চলেছে। অনেকেই ঋণগ্রস্ত। এমন পরিস্থিতিতে আবার ব্যবসা বন্ধ হয়ে গেলে পরিবার নিয়ে না খেয়ে থাকতে হবে তাদের।

সংশ্লিষ্টদের সঙ্গে কথা হয়েছে জানিয়ে তিনি বলেন, আমরা সরকারের কাছে আবেদন করেছি যে, লকডাউনের এই এক সপ্তাহ দিনে চার ঘণ্টার জন্য পাইকারি ব্যবসা প্রতিষ্ঠানগুলো খোলা রাখা যায় কিনা। কারণ রমজান উপলক্ষে পাইকারি বাজারে এখন পুরো বিক্রির সময়। খুচরা ব্যবসায়ীরা এক সপ্তাহ দোকান বন্ধ রাখলেও পরে তা পুষিয়ে নিতে পারবেন। তবে এক সপ্তাহের বেশি লকডাউন হলে খুচরা ব্যবসায়ীরাও বিপদে পড়বেন। তাই পুরো বিষয়টি বিবেচনায় নিয়ে সরকারকে সিদ্ধান্ত নিতে হবে।

তবে খুবই আতঙ্কের মধ্যে দিন কাটাচ্ছেন  রাস্তার দু’পাশের হকাররা, কয়েজন হকার আগামী নিউজকে বলেন, লকডাউন আসছে মানে আমাদের মাথায় হাত, সবাই সব কিছু পাবে কিন্তু আমারা কি পাবো? আমরা কিভাবে যে চলবো সেটা ভেবেই কান্না পাচ্ছে। সাধারণ হকারদের দাবি, দিনে যেন ৪ ঘন্টা করে দোকান খোলার অনুমতি দেয় সরকার তাহলে কোন মতে তারা চলতে পারবে।

উল্লেখ্য,দেশে প্রথম করোনা সংক্রমণ ধরা পড়ে গত বছরের ৮ মার্চ। এরপর ২৬ মার্চ থেকে সাধারণ ছুটি শুরু হয়। সড়ক পরিবহন ও সেতুমন্ত্রী ওবায়দুল কাদের শনিবার সকালে প্রথম ‘লকডাউনের’ খবর জানান। এরপর জনপ্রশাসন প্রতিমন্ত্রী ফরহাদ হোসেন দুপুর সাড়ে ১২টার দিকে ‘লকডাউনের’ সিদ্ধান্তের কথা জানান।

আগামীনিউজ/প্রভাত