Dr. Neem
Dr. Neem Hakim

বরিশালে মৃৎশিল্পীদের দুর্দিনে আশার আলো দেখাচ্ছে পুনাক


আগামী নিউজ | মো: জহির খান, বরিশাল প্রতিনিধি প্রকাশিত: মে ৩০, ২০২১, ০২:১৭ পিএম
বরিশালে মৃৎশিল্পীদের দুর্দিনে আশার আলো দেখাচ্ছে পুনাক

ছবি : আগামী নিউজ

বরিশালঃ বিজ্ঞানের জয়যাত্রা, প্রযুক্তির উন্নয়ন ও নতুন নতুন শিল্প সামগ্রীর প্রসারের কারণে আর কালের বিবর্তনে ক্রমেই হারিয়ে যাচ্ছে বরিশালের বাকেরগঞ্জের ঐতিহ্যবাহী মৃৎ শিল্প।

উপজেলার নিয়ামতি ইউনিয়নের মহেশপুর এলাকার পালপাড়াটি যেন শিল্পীর তুলিতে আঁকা একটি স্বর্ণালী ছবি। অসংখ্য কুটিরের নয়নাভিরাম মৃৎ শিল্পীদের বাসস্থান রয়েছে এখানে। যা সহজেই যে কারোর মনকে পুলকিত করে। মৃৎ শিল্পের জন্য এই এলাকা খুবই বিখ্যাত। বহুমুখী সমস্যা ও পৃষ্ঠপোষকতার অভাবে উপজেলার নিয়ামতি ইউনিয়নের মৃৎ শিল্প প্রায় বিলুপ্তির পথে গিয়েছিলো। তবে এরই মধ্যে নিয়ামতি ইউনিয়নের ওই মৃৎ শিল্পীদের আশার আলো হয়ে পাশে দাড়িয়েছে বাংলাদেশ পুলিশ নারী কল্যাণ সমিতি (পুনাক)। প্রতিশ্রুতি দিয়েছে মৃৎ শিল্পীদের সার্বিক উন্নয়নে সবসময় পাশে থাকবে সংগঠনটি।

শনিবার (২৯ মে) উপজেলার নিয়ামতি ইউনিয়নের মহেশপুর বাজারে মৃৎ শিল্পীদের ঐতিহ্যবাহী শিল্পের কাজ দেখতে গিয়ে জেলা পুনাকের প্রতিনিধিদল মৃৎ শিল্পীদের সার্বিক সহায়তার এই আশ্বাস দেন।

এ সময় সেখানে বাকেরগঞ্জ থানার ভারপ্রাপ্ত কর্মকর্তা (ওসি) মো. আলাউদ্দিন মিলনের সভাপতিত্বে প্রায় তিন শতাধিক মৃৎশিল্পী পরিবার নিয়ে এক আলোচনা সভা অনুষ্ঠিত হয়। এতে প্রধান অতিথি ছিলেন, বরিশাল জেলা পুলিশ সুপারের সহধর্মীনি ও জেলা পুনাকের সভানেত্রী সৈয়দা তৌফিকা রফিক। এছাড়া আরও উপস্থিত ছিলেন, জেলা পুনাকের সহ-সভানেত্রী সূচী সুদীপ্ত, বাকেরগঞ্জ সার্কেলের অতিরিক্ত পুলিশ সুপার সুদীপ্ত সরকার, সহকারী পুলিশ সুপার অনন্যা চক্রবর্তী, নিয়ামতি ইউনিয়ন পরিষদ চেয়ারম্যান রুহুল আমিন মাসুম, উপজেলা আওয়ামী লীগের সাবেক সাংগঠনিক সম্পাদক মো: জয়নাল আবেদীন, ইউনিয়ন আওয়ামী লীগ সভাপতি সৈয়দ ইমাম হোসেন নিলু, সাধারন সম্পাদক বাবু বিমল চন্দ্র সাহা এবং এলাকার সামাজিক ব্যক্তিবর্গসহ পাল সম্প্রদায়ের প্রতিনিধিরা।

আলোচনা সভায় প্রধান অতিথির বক্তব্যে জেলা পুনাক সভানেত্রী সৈয়দা তৌফিকা রফিক বলেন, ‘মহামারি করোনা দুর্যোগের মধ্যে নিয়ামতির মৃৎশিল্পীরা কিভাবে জীবনযাপন করছেন তা দেখতে এসেছি। খুব কাছ থেকে তাদের দুঃখ-দূরদর্শার কিছুটা দেখেছি, তাই যতটা সম্ভব আমরা তাদের সাহায্য সহোযগীতা করবো।

মৃৎ শিল্পের ঐতিহ্য সম্পর্কে আলোকপাত করে তিনি আরও বলেন,‘বাংলাদেশ পুনাকের সভানেত্রী ও বাংলাদেশ পুলিশের বর্তমান আইজিপি বেনজীর আহমেদের সুযোগ্য নেতৃত্বে বাংলার এই ঐতিহ্যবাহি শিল্প আরও সামনের দিকে এগিয়ে যাবে।’

সভায় জেলার অতিরিক্ত পুলিশ সুপার (বাকেরগঞ্জ সার্কেল) সুদীপ্ত সরকার বলেন, আধুনিকতার ছোঁয়ায় মৃৎ শিল্প প্রায় বিলুপ্তির পথে দাড়িয়েছে। তারপরও বেশি সংখ্যক নিম্নবিত্ত হিন্দু পরিবার বংশ পরম্পরায় মৃৎ শিল্পের ওপরে নির্ভর করে কোনোভাবে বেঁচে রয়েছেন। তবে বর্তমানে একদিকে আধুনিকায়নের ছোয়া এবং অন্যদিকে করোনা প্রাদুর্ভাবে যে অবস্থা হয়তোবা আর বেশিদিন বাংলার সবচেয়ে প্রাচীন এই মাটির শিল্প নিয়ে ওইসব পরিবারগুলো থাকতে পারবে না। তাই সকলকে সহযোগিতার হাত বাড়িয়ে বিলুপ্তির পথ থেকে দেশের ঐতিহ্যবাহি মৃৎ শিল্পকে রক্ষার আহবান জানিয়েছেন পুলিশের এই দায়িত্বশীল কর্মকর্তা।

পরে আলোচনা সভায় উপস্থিত অতিথিরা মৃৎ শিল্পীদের কয়েকজন প্রতিনিধির কাছ থেকে তাদের নানাবিধ সমস্যা সম্পর্কে শোনেন। শেষে মৃৎ শিল্পীদের সাথে তাদের পালপাড়ার বাড়িতে বাড়িতে গিয়ে নিপুন হাতে তৈরীকৃত নানা কাজ প্রত্যক্ষ করেন এবং তাদের উৎসাহ দেন উপস্থিত অতিথিরা।