August
  1. প্রচ্ছদ
  2. জাতীয়
  3. সারাবাংলা
  4. রাজনীতি
  5. রাজধানী
  6. আন্তর্জাতিক
  7. আদালত
  8. খেলা
  9. বিনোদন
  10. লাইফস্টাইল
  11. শিক্ষা
  12. স্বাস্থ্য
  13. তথ্য-প্রযুক্তি
  14. চাকরির খবর
  15. ভাবনা ও বিশ্লেষণ
  16. সাহিত্য
  17. মিডিয়া
  18. বিশেষ প্রতিবেদন
  19. ফটো গ্যালারি
  20. ভিডিও গ্যালারি

চুনারুঘাটে পিতার লাঠির আঘাতে পুত্র নিহত

উপজেলা প্রতিনিধি, চুনারুঘাট (হবিগঞ্জ) প্রকাশিত: জুন ২১, ২০২২, ০১:৪৩ পিএম চুনারুঘাটে পিতার লাঠির আঘাতে পুত্র নিহত

হবিগঞ্জঃ চুনারুঘাটে  পারিবারিক  কলহের  জের ধরে পিতার  লাঠির  আঘাতে মৃত্যু  হয়েছেন পুত্র দীলিপ তন্তবায় (৩৫) নামে এক যুবকের। সোমবার  রাত  দেড়টায়  উপজেলার  দেওরগাছ ইউপির  পুরাণ  বাংলায় ঘটনাটি ঘটেছে।  দীলিপ ওই  এলাকার  রেনু তন্তবায়ের  পুত্র।

পুলিশ  ও  পরিবার  সূত্রে  জানা  গেছে,  দীলিপ স্থানীয়  বাগানের  একজন  শ্রমিক। রবিবার নিজের  কাজকর্ম  শেষে  দীলিপ  বাড়ি  ফেরেন। এরপর  তার  সাথে  স্ত্রী  মনি  তন্তবায়ের পারিবারিক  বিষয়  নিয়ে  গোলযোগ  হয়। দীলিপ উত্তপ্ত  হয়ে  কথা  কাটাটির  এক  পর্যায়ে  মনি তন্তবায়কে  মারপিট  করে।  এ  সময় মনি তন্তবায়ের শ্বশুর  রেনু  তন্তবায়   ঘুমিয়ে ছিল।  মনি  তন্তবায়  ঘুম থেকে  ডেকে শ্বশুর রেনুকে   মারপিটের  বিষয়টি জানালে পিতা  এবং  ছেলের  মধ্যে  ঝগড়া  শুরু  হয়। একপর্যায়ে  পুত্র-পিতার  নাকে,  মুখে  লাঠি  দিয়ে আঘাত  করে,  পরবর্তীতে  পিতা-পুত্রকে  ধাক্কা দিয়ে বাড়ীর  উঠানের  বারান্দার  পাকা  সিড়ির উপর  ফেলে  দেয়।  এতে  পিতা  রেনু  রাগের বশবর্তী  হয়ে  কাছে থাকা  বাঁশের  লাঠি  দিয়ে মাথায়  ও  শরীরে  আঘাত করেন  দীলিপকে। লাঠির  আঘাতে  দীলিপ  আহত হলে  পরে পরিবারের  লোকজন  তাকে  সোমবার  সকাল সাড়ে  দশটায়   চুনারুঘাট  হাসপাতালে  ভর্তি করেন।  অবস্থা  গুরুতর  হওয়ায়  উন্নত চিকিৎসার জন্য  দুপুরে  দীলিপকে  হবিগঞ্জ সদর আধুনিক হাসপাতালে   রেফার  করা  হয়।হবিগঞ্জ  নেয়ার  পথে তার  মৃত্যু  হয়।  পরবর্তীতে হবিগঞ্জের  কর্তব্যরত চিকিৎসক  পরীক্ষা নিরীক্ষা  শেষে  দীলিপকে  মৃত ঘোষণা  করেন।

এ ঘটনার সত্যতা নিশ্চিত করেছেন  চুনারুঘাট থানার  ওসি  মোঃ  আলী  আশরাফ ।  তিনি বলেন,  স্বামী-স্ত্রীর  কলোহের  জের  ধরে  পিতা পুত্রকে লাঠি  দিয়ে  আঘাত  করায়  তিনি  মারা গেছেন। নিহতের  মরদেহ  ময়নাতদন্তের  জন্য হবিগঞ্জ  সদর হাসপাতাল  মর্গে  পাঠানো হয়েছে। এ  ঘটনায়  মামলার প্রস্তুতি  চলছে।

শংকর শীল/এমবুইউ

Small Banner