Agaminews
Dr. Neem
Dr. Neem Hakim

৮ মাস বেতন না পেয়ে শিক্ষকদের মানবেতর জীবন


আগামী নিউজ | ডেস্ক রিপোর্ট প্রকাশিত: জানুয়ারি ১২, ২০২১, ০১:২৪ পিএম
৮ মাস বেতন না পেয়ে শিক্ষকদের মানবেতর জীবন

ছবি: সংগৃহীত

ঢাকাঃ নওগাঁর আত্রাইয়ে সদ্য জাতীয়করণ হওয়া আহসান উল্লাহ মেমোরিয়াল মডেল সরকারি উচ্চ বিদ্যালয়ের আট মাস ধরে প্রধান শিক্ষক পদ শুন্য। এমপিও শীট এবং শিক্ষা মন্ত্রণালয়ের নিয়োগকৃত ২ ও ৩ নম্বর বাদ দিয়ে ৪ নম্বর ক্রমিকে থাকা শিক্ষককে ভারপ্রাপ্ত প্রধান শিক্ষক করায় বিদ্যালয়ে চরম বিশৃংখল পরিবেশ বিরাজ করছে। 

এদিকে আর্থিক ক্ষমতাসম্পন্ন ভারপ্রাপ্ত প্রধান শিক্ষক না থাকায় আট মাস ধরে বেতন না পেয়ে শিক্ষক-কর্মচারীরা মানবেতর জীবনযাপন করছেন। এতে বিদ্যালয়ের প্রশাসনিকসহ দৈনন্দিন কার্যক্রমে নেমে এসেছে স্থবিরতা।

জানা যায়, গত ২৪ জুলাই ২০২০ আহসান উল্লাহ মেমোরিয়াল মডেল সরকারি উচ্চ বিদ্যালয়ের প্রধান শিক্ষক অবসরে যান। এরপর আর্থিক ক্ষমতা বাদে বিদ্যালয়ের দৈনন্দিন কাজ পরিচালনার জন্য এমপিও শীট এবং শিক্ষা মন্ত্রণালয়ের নিয়োগকৃত ২ নম্বর ক্রমিকে থাকা মাহাতাব উদ্দিন এবং ৩ নম্বর ক্রমিকে থাকা শারমিন আখতারকে বাদ দিয়ে ৪ নম্বর ক্রমিকে থাকা জবা রানী ঘোষকে ভারপ্রাপ্ত প্রধান শিক্ষকের দায়িত্ব দেন উপজেলা নির্বাহী কর্মকর্তা ও বিদ্যালয় পরিচালনা কমিটির সভাপতি ছানাউল ইসলাম। ভারপ্রাপ্ত প্রধান শিক্ষক যথাযথ নিয়মে না হওয়ায় চ্যালেঞ্জ করে গত ৩ সেপ্টেম্বর মাহাতাব উদ্দিন আর্থিক ক্ষমতাসহ ভারপ্রাপ্ত প্রধান শিক্ষকের জন্য মাধ্যমিক ও উচ্চ শিক্ষা অধিদপ্তর বরাবর আবেদন করেন। 

অপরদিকে গত ২৩ সেপ্টেম্বর জবা রানী ঘোষ একই পদে ডিজি বরাবর আবেদন করেন। তাদের আবেদনের প্রেক্ষিতে মাধ্যমিক ও উচ্চ শিক্ষা অধিদপ্তর (ডিজি) থেকে গত ৫ নভেম্বর আর্থিক ক্ষমতার বিষয়ে সুস্পষ্ট মতামত চেয়ে উপপরিচালক রাজশাহী অঞ্চলকে চিঠি দেন। চিঠির জবাবে গত ২৩ নভেম্বর রাজশাহী অঞ্চেলের উপপরিচালক ড. শারমিন ফেরদৌস চৌধুরী এমপিও শীট এবং শিক্ষা মন্ত্রণালয়ের নিয়োগে থাকা ২ নং ক্রমিকের শিক্ষক মাহাতাব উদ্দিনকে আর্থিক ক্ষমতাসহ ভারপ্রাপ্ত প্রধান শিক্ষক পদে প্রদানের লক্ষে মতামত দেন। 

চিঠি প্রদানের পর আর্থিক ক্ষমতার মতামত যথাযথ হয়নি মর্মে সুপ্রিম কোর্টের সিনিয়র আইনজীবী হিউম্যান রাইটস ও মাইনরিটি ওয়ার্ডের সভাপতি বীরেন ঘোষ উপপরিচালক রাজশাহীকে টেলিফোনে উষ্মা প্রকাশ করেন। টেলিফোন পেয়ে  গত ২ ডিসেম্বর উপপরিচালক রাজশাহী অঞ্চল পুনরায় মাধ্যমিক ও উচ্চ শিক্ষা অধিদপ্তরের আইন সেলের পরামর্শ্ব মোতাবেক আর্থিক ক্ষমতা প্রদানের মতামত দেন।

উপজেলা নির্বাহী কর্মকর্তা ও বিদ্যালয় পরিচালনা কমিটির সভাপতি ছানাউল ইসলাম বলেন, মাধ্যমিক ও উচ্চ শিক্ষা অধিদপ্তর কর্তৃক আর্থিক ক্ষমতাসহ প্রধান শিক্ষক না থাকায় শিক্ষক-কর্মচারীরা তাদের বেতন উত্তোলন করতে পারছেন না।

আগামীনিউজ/এএইচ